ঢাকা ০৫:০৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হতাশা প্রকাশ করে শাস্তির মুখোমুখি কুমিল্লার কোচ

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৫:৩১:০৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২৩ ১৫ বার পঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট ঃ

জাকের আলী অনিকের বিদায়ের সমালোচনা করে এক সংবাদ সম্মেলনে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কোচ মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন বলেন, হাত-পা বাঁধা, কিছু বললে সাসপেন্ড করা হবে। রেফারি সংবাদ সম্মেলনে এমন মন্তব্যের জন্য কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের প্রধান কোচ মোহাম্মদ সালাহউদ্দিনকে কঠোর শাস্তি দেওয়া হয়। ম্যাচ ফির ৫০% ঘোষণা করেছে বিসিবি। সেই সঙ্গে তার নামের পাশে যোগ হয়েছে ৩টি ডিমেরিট পয়েন্ট।

রোববার (১৫ জানুয়ারি) রাত ১০টায় বিসিবির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, শনিবার (১৪ জানুয়ারি) ফরচুন বরিশাল ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের মধ্যকার ম্যাচের পর কুমিল্লার কোচ সালাদিনো যে মন্তব্য করেছেন তা বিসিবি আচরণবিধির লেভেল ২ এর অনুচ্ছেদ ২.৭ এর পরিপন্থী।

সার্কুলারটি আরও জানায় যে সালাহউদ্দিন ম্যাচ রেফারি দেবব্রত পালের কাছে তার দোষ স্বীকার করেছেন এবং তাই কোন আনুষ্ঠানিক শুনানির প্রয়োজন নেই। ফিল্ড রেফারি ডেভিড মিলিয়নস, মোরশেদ আলী খান সুমন, তৃতীয় রেফারি তানভীর আহমেদ এবং চতুর্থ রেফারি মুজাহিদুজ্জামান স্বপন কোচ সালাহউদ্দিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন।

ফরচুন বরিশাল ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের মধ্যকার ম্যাচে জাকের আলী অনিকের কম জন্ম ওজন নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়। এটা মোটেও আইসিসি ডিআরএস নিয়মের অধীনে নয়। কিন্তু বিসিবি তার বিধিমালায় আইসিসির নিয়ম পরিবর্তন করে নতুন নিয়ম যুক্ত করেছে। কিন্তু যেহেতু পরিবর্তনটি আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হয়নি, তাই এটি অনেকের বোঝার বাইরে পড়ে গেছে।

এ কারণেই হয়তো সেই ম্যাচের পর অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন কুমিল্লার কোচ সালাহউদ্দিন। তিনি বললেন, সবাই খালি চোখে দেখেছে যে এটি বাইরে নয়। কিন্তু টেলিভিশন রেফারি রিপ্লে দেখে হাল ছেড়ে দেন। সালিশের বিষয়ে আমরা কিছু বলতে পারি না। কারণ আমাদের হাত পা বাধা।

 

ট্যাগস :

হতাশা প্রকাশ করে শাস্তির মুখোমুখি কুমিল্লার কোচ

আপডেট সময় : ০৫:৩১:০৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২৩

ডেস্ক রিপোর্ট ঃ

জাকের আলী অনিকের বিদায়ের সমালোচনা করে এক সংবাদ সম্মেলনে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কোচ মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন বলেন, হাত-পা বাঁধা, কিছু বললে সাসপেন্ড করা হবে। রেফারি সংবাদ সম্মেলনে এমন মন্তব্যের জন্য কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের প্রধান কোচ মোহাম্মদ সালাহউদ্দিনকে কঠোর শাস্তি দেওয়া হয়। ম্যাচ ফির ৫০% ঘোষণা করেছে বিসিবি। সেই সঙ্গে তার নামের পাশে যোগ হয়েছে ৩টি ডিমেরিট পয়েন্ট।

রোববার (১৫ জানুয়ারি) রাত ১০টায় বিসিবির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, শনিবার (১৪ জানুয়ারি) ফরচুন বরিশাল ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের মধ্যকার ম্যাচের পর কুমিল্লার কোচ সালাদিনো যে মন্তব্য করেছেন তা বিসিবি আচরণবিধির লেভেল ২ এর অনুচ্ছেদ ২.৭ এর পরিপন্থী।

সার্কুলারটি আরও জানায় যে সালাহউদ্দিন ম্যাচ রেফারি দেবব্রত পালের কাছে তার দোষ স্বীকার করেছেন এবং তাই কোন আনুষ্ঠানিক শুনানির প্রয়োজন নেই। ফিল্ড রেফারি ডেভিড মিলিয়নস, মোরশেদ আলী খান সুমন, তৃতীয় রেফারি তানভীর আহমেদ এবং চতুর্থ রেফারি মুজাহিদুজ্জামান স্বপন কোচ সালাহউদ্দিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন।

ফরচুন বরিশাল ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের মধ্যকার ম্যাচে জাকের আলী অনিকের কম জন্ম ওজন নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়। এটা মোটেও আইসিসি ডিআরএস নিয়মের অধীনে নয়। কিন্তু বিসিবি তার বিধিমালায় আইসিসির নিয়ম পরিবর্তন করে নতুন নিয়ম যুক্ত করেছে। কিন্তু যেহেতু পরিবর্তনটি আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হয়নি, তাই এটি অনেকের বোঝার বাইরে পড়ে গেছে।

এ কারণেই হয়তো সেই ম্যাচের পর অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন কুমিল্লার কোচ সালাহউদ্দিন। তিনি বললেন, সবাই খালি চোখে দেখেছে যে এটি বাইরে নয়। কিন্তু টেলিভিশন রেফারি রিপ্লে দেখে হাল ছেড়ে দেন। সালিশের বিষয়ে আমরা কিছু বলতে পারি না। কারণ আমাদের হাত পা বাধা।