ঢাকা ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সিপিডি-টিআইবি-সুজন সবাই বিএনপির সুরে সুর মিলিয়ে কথা বলছে:কাদের

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৭:৫৩:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ৮ জুন ২০২৪ ১২ বার পঠিত

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সিপিডি, টিআইবি, সুজন কী বললো এসব নিয়ে আমাদের কোনো মাথাব্যথা নেই। তারা সবাই বিএনপির সঙ্গে সুর মিলিয়ে কথা বলছেন। বাস্তবতার সাথে কোন মিল নেই। হাজার হাজার টাকা পাচারের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত বিএনপির পলাতক নেতা তারেক রহমান লন্ডনে স্বাচ্ছন্দ্যে বসবাস করছেন। অর্থ পাচারের হিসাব মির্জা ফখরুল সাহেবকে দিতে হবে।

শনিবার (৮ জুন) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে আওয়ামী লীগ। সিপিডি, টিআইবি, সুজনের প্রতিক্রিয়ায় ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

প্রস্তাবিত বাজেটের প্রতিক্রিয়ায় সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) বলেছে, এবারের বাজেটে সরকার মুনশিয়ানা দেখাতে পারেনি। কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এটা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) বলছে, কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দুর্নীতি সহায়ক। মাত্র ১৫ শতাংশ কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার এমন সুবিধা সৎ ও বৈধ আয়ের ব্যক্তি করদাতাকে নিরুৎসাহিত করার সংস্কৃতি গড়ে তোলার পাশাপাশি এবং এর আওতায় ঘোষিত অর্থ ও সম্পদের ব্যাপারে কোনো কর্তৃপক্ষের প্রশ্ন করার সুযোগ না রাখা দেশে দুর্নীতি সহায়ক একটি উদার পরিবেশ তৈরিতে ভূমিকা রাখবে বলেই শঙ্কা।

ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটকে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক সংকটকালে পরিমিত, বাস্তবসম্মত, গণমুখী ও সাহসী হিসেবে অভিহিত করে স্বাগত জানিয়েছে আওয়ামী লীগ। এবারের বাজেটের মূললক্ষ্য চলমান অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা ও সংকট দূর এবং উচ্চ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করে দেশের অর্থনীতিকে ধীরে ধীরে উচ্চ গতিশীল অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে বাংলাদেশকে ফিরিয়ে নেওয়া।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রায় ৮ লাখ কোটি টাকার বাজেট দিয়েও আওয়ামী লীগের অর্থমন্ত্রীরা ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর নজির নেই। বিএনপি আজ বড় বড় কথা বলে, মানি লন্ডারিং, দুর্নীতি ও দেশকে গিলে ফেলার কথা বলে। তাদের মেয়াদে শেষ বাজেট ছিল ৬৮ হাজার কোটি টাকা। তবে বাজেটের আগে সাইফুর রহমানকে প্যারিসে বিভিন্ন বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামে কনসোডিয়াম সভায় ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে ছুটতে হয়েছে। আমাদের অর্থমন্ত্রীরা কেউ ভিক্ষা করতে যাননি।

সিপিডি-টিআইবি-সুজন সবাই বিএনপির সুরে সুর মিলিয়ে কথা বলছে:কাদের

আপডেট সময় : ০৭:৫৩:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ৮ জুন ২০২৪

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সিপিডি, টিআইবি, সুজন কী বললো এসব নিয়ে আমাদের কোনো মাথাব্যথা নেই। তারা সবাই বিএনপির সঙ্গে সুর মিলিয়ে কথা বলছেন। বাস্তবতার সাথে কোন মিল নেই। হাজার হাজার টাকা পাচারের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত বিএনপির পলাতক নেতা তারেক রহমান লন্ডনে স্বাচ্ছন্দ্যে বসবাস করছেন। অর্থ পাচারের হিসাব মির্জা ফখরুল সাহেবকে দিতে হবে।

শনিবার (৮ জুন) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে আওয়ামী লীগ। সিপিডি, টিআইবি, সুজনের প্রতিক্রিয়ায় ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

প্রস্তাবিত বাজেটের প্রতিক্রিয়ায় সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) বলেছে, এবারের বাজেটে সরকার মুনশিয়ানা দেখাতে পারেনি। কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এটা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) বলছে, কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দুর্নীতি সহায়ক। মাত্র ১৫ শতাংশ কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার এমন সুবিধা সৎ ও বৈধ আয়ের ব্যক্তি করদাতাকে নিরুৎসাহিত করার সংস্কৃতি গড়ে তোলার পাশাপাশি এবং এর আওতায় ঘোষিত অর্থ ও সম্পদের ব্যাপারে কোনো কর্তৃপক্ষের প্রশ্ন করার সুযোগ না রাখা দেশে দুর্নীতি সহায়ক একটি উদার পরিবেশ তৈরিতে ভূমিকা রাখবে বলেই শঙ্কা।

ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটকে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক সংকটকালে পরিমিত, বাস্তবসম্মত, গণমুখী ও সাহসী হিসেবে অভিহিত করে স্বাগত জানিয়েছে আওয়ামী লীগ। এবারের বাজেটের মূললক্ষ্য চলমান অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা ও সংকট দূর এবং উচ্চ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করে দেশের অর্থনীতিকে ধীরে ধীরে উচ্চ গতিশীল অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে বাংলাদেশকে ফিরিয়ে নেওয়া।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রায় ৮ লাখ কোটি টাকার বাজেট দিয়েও আওয়ামী লীগের অর্থমন্ত্রীরা ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর নজির নেই। বিএনপি আজ বড় বড় কথা বলে, মানি লন্ডারিং, দুর্নীতি ও দেশকে গিলে ফেলার কথা বলে। তাদের মেয়াদে শেষ বাজেট ছিল ৬৮ হাজার কোটি টাকা। তবে বাজেটের আগে সাইফুর রহমানকে প্যারিসে বিভিন্ন বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামে কনসোডিয়াম সভায় ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে ছুটতে হয়েছে। আমাদের অর্থমন্ত্রীরা কেউ ভিক্ষা করতে যাননি।