ঢাকা ০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সালমান শাহ এখনো তার ভক্তদের হৃদয়ের রাজ্যে

বিনোদন ডেস্ক:
  • আপডেট সময় : ০৪:০৭:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪ ১৩ বার পঠিত

ঢাকাই সিনেমায় এসেছিলেন ধূমকেতুর মতো। এলেন, দেখলেন, জয় করলেন- রীতিতে তিনি হয়েছিলেন গণমানুষের সুপারস্টার। কিন্তু ক্যারিয়ারের মাত্র চার বছরেই নিভে গিয়েছিল এ উজ্জ্বল নক্ষত্র। বলা হচ্ছে, বাঙালি সিনেমাপ্রেমীদের আবেগের নাম সালমান শাহ’র কথা। ক্ষণজন্মা এই নায়ক খুব কম সময় পর্দায় থাকলেও কাজ দিয়ে এখনো চির অম্লান। তবে, আজও রুপালি পর্দার ভালোবাসার রাজ্যে স্বপ্নের রাজকুমারের নাম সালমান শাহ।

রহস্যময় মৃত্যুতে ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর না ফেরার দেশে চলে যান সালমান শাহ। চলে যাওয়ার ২৬ বছর পর আজও বাংলা চলচ্চিত্রের আকাশে ক্ষণজন্মা এক নক্ষত্রকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন তার ভক্ত ও সহকর্মীরা। কারণ আজও ভক্তদের ‘অন্তরে অন্তরে’ সালমান শাহ।

টেলিভিশন নাটক দিয়ে তার অভিনয়জীবন শুরু হলেও নব্বইয়ের দশকে তিনি চলচ্চিত্রে অন্যতম জনপ্রিয় শিল্পী হয়ে ওঠেন। ১৯৯৩ সালে তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ মুক্তি পায়।

ক্যারিয়ারের মোট ২৭টি সিনেমায় অভিনয় করেছিলেন সালমান শাহ। শাবনূরের সঙ্গে জুটি হয়ে ১৩টি সিনেমায় অভিনয় করেছিলেন সালমান। এ জুটির সব কটি সিনেমাই ছিল ব্যবসাসফল।

শাবনূর ছাড়াও মৌসুমী, শাহনাজ, অন্তরা, শিল্পীসহ অনেকের সঙ্গে অভিনয় করেছেন সালমান শাহ।

ঢাকাই চলচ্চিত্রে পা রেখে অল্প সময়েই তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেন সালমান শাহ। ক্যারিয়ারে মাত্র ছয় বছরেই বাজিমাত করেন তিনি। সালমান শাহ দেখতে যেমন সুদর্শন ছিলেন, তেমনি ভীষণ স্টাইলিশও ছিলেন। শুধু দেশেই নয়, বলিউডের অনেকে তারকাও ফলো করতেন স্টাইলিশ এই হিরোকে।

দীর্ঘ ২৬ বছর পার হলেও তুমুল জনপ্রিয় এই নায়কের মৃত্যুর রহস্য আজও উদঘাটন হয়নি। আত্মহত্যা করেছিলেন বলেই জানা গেছিলো। সালমান শাহর মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে আসে ঢাকাই চলচ্চিত্রেও। কেন এমন পথ বেছে নিলেন তিনি? এই প্রশ্ন আজও তাড়া করে বেড়ায় তার ভক্ত-অনুরাগীদের। তবে, এত প্রশ্ন-উত্তরের মাঝেও সালমান শাহ এখনো তার ভক্তদের হৃদয়ের রাজ্যে বিরাজমান।

সালমান শাহ এখনো তার ভক্তদের হৃদয়ের রাজ্যে

আপডেট সময় : ০৪:০৭:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

ঢাকাই সিনেমায় এসেছিলেন ধূমকেতুর মতো। এলেন, দেখলেন, জয় করলেন- রীতিতে তিনি হয়েছিলেন গণমানুষের সুপারস্টার। কিন্তু ক্যারিয়ারের মাত্র চার বছরেই নিভে গিয়েছিল এ উজ্জ্বল নক্ষত্র। বলা হচ্ছে, বাঙালি সিনেমাপ্রেমীদের আবেগের নাম সালমান শাহ’র কথা। ক্ষণজন্মা এই নায়ক খুব কম সময় পর্দায় থাকলেও কাজ দিয়ে এখনো চির অম্লান। তবে, আজও রুপালি পর্দার ভালোবাসার রাজ্যে স্বপ্নের রাজকুমারের নাম সালমান শাহ।

রহস্যময় মৃত্যুতে ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর না ফেরার দেশে চলে যান সালমান শাহ। চলে যাওয়ার ২৬ বছর পর আজও বাংলা চলচ্চিত্রের আকাশে ক্ষণজন্মা এক নক্ষত্রকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন তার ভক্ত ও সহকর্মীরা। কারণ আজও ভক্তদের ‘অন্তরে অন্তরে’ সালমান শাহ।

টেলিভিশন নাটক দিয়ে তার অভিনয়জীবন শুরু হলেও নব্বইয়ের দশকে তিনি চলচ্চিত্রে অন্যতম জনপ্রিয় শিল্পী হয়ে ওঠেন। ১৯৯৩ সালে তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ মুক্তি পায়।

ক্যারিয়ারের মোট ২৭টি সিনেমায় অভিনয় করেছিলেন সালমান শাহ। শাবনূরের সঙ্গে জুটি হয়ে ১৩টি সিনেমায় অভিনয় করেছিলেন সালমান। এ জুটির সব কটি সিনেমাই ছিল ব্যবসাসফল।

শাবনূর ছাড়াও মৌসুমী, শাহনাজ, অন্তরা, শিল্পীসহ অনেকের সঙ্গে অভিনয় করেছেন সালমান শাহ।

ঢাকাই চলচ্চিত্রে পা রেখে অল্প সময়েই তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেন সালমান শাহ। ক্যারিয়ারে মাত্র ছয় বছরেই বাজিমাত করেন তিনি। সালমান শাহ দেখতে যেমন সুদর্শন ছিলেন, তেমনি ভীষণ স্টাইলিশও ছিলেন। শুধু দেশেই নয়, বলিউডের অনেকে তারকাও ফলো করতেন স্টাইলিশ এই হিরোকে।

দীর্ঘ ২৬ বছর পার হলেও তুমুল জনপ্রিয় এই নায়কের মৃত্যুর রহস্য আজও উদঘাটন হয়নি। আত্মহত্যা করেছিলেন বলেই জানা গেছিলো। সালমান শাহর মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে আসে ঢাকাই চলচ্চিত্রেও। কেন এমন পথ বেছে নিলেন তিনি? এই প্রশ্ন আজও তাড়া করে বেড়ায় তার ভক্ত-অনুরাগীদের। তবে, এত প্রশ্ন-উত্তরের মাঝেও সালমান শাহ এখনো তার ভক্তদের হৃদয়ের রাজ্যে বিরাজমান।