ঢাকা ০৭:০৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo নরসিংদীতে সংবর্ধনা নেওয়ার সময় ভূয়া ম্যাজিস্ট্রেট আটক, তিন মাসের সাজা Logo দেশের বাজারে বয়া এর নতুন অল ইন ওয়ান ওয়ারলেস মাইক্রোফোন Logo সাড়ে চারশ কোটির হীরার নেকলেসে নজর কাড়লেন প্রিয়াঙ্কা Logo  পৃথিবীতে কোন দেশের মেয়েরা সবচেয়ে বেশি সুন্দরী Logo বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেশের গণতন্ত্র-মৌলিক অধিকারের পরিপন্থী Logo ঈদের সময় ১১ দিন বাল্কহেড চলাচল বন্ধ Logo বিএসআরএফ বার্তা’র মোড়ক উম্মোচন করলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী Logo টানা ছয় ম্যাচ জিতে প্লে অফ নিশ্চিত করলেও শেষমেশ বিদায় নিলো বেঙ্গালুরু Logo গাজায় মসজিদে ইসরায়েলি হামলা, ১০ শিশুসহ নিহত ১৬ Logo এমপি আনোয়ারুল হত্যাকাণ্ড: ঢাকায় আসছে ভারতীয় পুলিশের স্পেশাল টিম

রোজাদার হোটেল ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করে দুই লাখ টাকা ছিনতাই

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৬:৩৮:০৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মার্চ ২০২৩ ৯ বার পঠিত

কক্সবাজার প্রতিনিধি:
কক্সবাজার সদর উপজেলার খরুলিয়া বাজারে রবিবার সকাল সাড়ে ১১ টায় এক রোজাদার ব্যবসায়ী সন্ত্রাসীদের হাতুড়ি ও ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন। এ সময় সন্ত্রাসীরা তার পকেটে থাকা দুই লক্ষ টাকা নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেছেন বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। আহত ব্যবসায়ী হচ্ছেন সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের খরুলিয়া কোনার পাড়ার মৃত ছৈয়দ আহমদের ছেলে ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম (৪০)।তিনি হোটেল-মোটেল ব্যবসায়ী।বাড়ি থেকে বের হয়ে খরুলিয়া বাজারে আসলে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা তাকে ঘিরে ফেলে এবং হাতুড়ি ছুরিকাঘাত করে পকেটে থাকা দুই লাখ টাকা ছিনেয়ে নেয়। চাহিদানুযায়ী চাঁদা না পাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে একাধিক মামলার পলাতক আসামী একই এলাকার মৃত জুলফিকার আলীর ছেলে সরওয়ার আলম সুকন (৩৭)ও শহিদুল আলমসহ ৩/৪ জন সন্ত্রাসী প্রকাশ্যে দিবালোকে খরুলিয়া বাজারে ওই ব্যবসায়ীকে হত্যার উদ্দেশ্যে হাতুড়ি দিয়ে মাথায়, কোমরে আঘাত করে এবং ছুরি চালিয়ে বুকে পিঠে মারাত্মক জহম করে। আহত শফিকুলকে প্রথমে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার অবস্থা শংকামুক্ত নয়।
তাকে ২৪ ঘন্টা নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে বলে জানান চিকিৎসকরা।কারণ তার মাথার আঘাত অত্যন্ত বিপদজনক। এদিকে আহত শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে সরওয়ার ও তার সহোদর শফিকসহ অজ্ঞাত আরো দুই জনকে আসামী করে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় এজাহার দায়ের করেছেন। দায়েরকৃত এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে আসামীগন অতিশয় সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, অস্ত্রধারী খুনি, অপহরণকারী ছিনতাইকারী ও মাদক মামলার আসামী। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন সরওয়ার সুকন ও তার ভাই শফিক দুইজনই চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী। তাদের ভয়ে এলাকার লোকজন মুখ খুলে না।এমনকি স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ রশিদ ও বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করতে রাজি হননি।স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সুলতান চোধুরী অবশ্য ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) নাজমুল হক এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, এ বিষয়ে থানায় একটি এজাহার দেয়া হয়েছে। আসল বিষয় তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

রোজাদার হোটেল ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করে দুই লাখ টাকা ছিনতাই

আপডেট সময় : ০৬:৩৮:০৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মার্চ ২০২৩

কক্সবাজার প্রতিনিধি:
কক্সবাজার সদর উপজেলার খরুলিয়া বাজারে রবিবার সকাল সাড়ে ১১ টায় এক রোজাদার ব্যবসায়ী সন্ত্রাসীদের হাতুড়ি ও ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন। এ সময় সন্ত্রাসীরা তার পকেটে থাকা দুই লক্ষ টাকা নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেছেন বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। আহত ব্যবসায়ী হচ্ছেন সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের খরুলিয়া কোনার পাড়ার মৃত ছৈয়দ আহমদের ছেলে ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম (৪০)।তিনি হোটেল-মোটেল ব্যবসায়ী।বাড়ি থেকে বের হয়ে খরুলিয়া বাজারে আসলে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা তাকে ঘিরে ফেলে এবং হাতুড়ি ছুরিকাঘাত করে পকেটে থাকা দুই লাখ টাকা ছিনেয়ে নেয়। চাহিদানুযায়ী চাঁদা না পাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে একাধিক মামলার পলাতক আসামী একই এলাকার মৃত জুলফিকার আলীর ছেলে সরওয়ার আলম সুকন (৩৭)ও শহিদুল আলমসহ ৩/৪ জন সন্ত্রাসী প্রকাশ্যে দিবালোকে খরুলিয়া বাজারে ওই ব্যবসায়ীকে হত্যার উদ্দেশ্যে হাতুড়ি দিয়ে মাথায়, কোমরে আঘাত করে এবং ছুরি চালিয়ে বুকে পিঠে মারাত্মক জহম করে। আহত শফিকুলকে প্রথমে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার অবস্থা শংকামুক্ত নয়।
তাকে ২৪ ঘন্টা নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে বলে জানান চিকিৎসকরা।কারণ তার মাথার আঘাত অত্যন্ত বিপদজনক। এদিকে আহত শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে সরওয়ার ও তার সহোদর শফিকসহ অজ্ঞাত আরো দুই জনকে আসামী করে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় এজাহার দায়ের করেছেন। দায়েরকৃত এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে আসামীগন অতিশয় সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, অস্ত্রধারী খুনি, অপহরণকারী ছিনতাইকারী ও মাদক মামলার আসামী। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন সরওয়ার সুকন ও তার ভাই শফিক দুইজনই চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী। তাদের ভয়ে এলাকার লোকজন মুখ খুলে না।এমনকি স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ রশিদ ও বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করতে রাজি হননি।স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সুলতান চোধুরী অবশ্য ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) নাজমুল হক এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, এ বিষয়ে থানায় একটি এজাহার দেয়া হয়েছে। আসল বিষয় তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।