ঢাকা ০৯:২৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাষ্ট্রপতি নির্বাচন, আলোচনায় রয়েছেন ৬ জন

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৪:৩৩:২১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৩ ২০ বার পঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট ঃ

দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেছেন বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। তার বর্তমান মেয়াদ শেষ হবে ২৩ এপ্রিল। এদিকে সংবিধান অনুযায়ী তার পুনরায় নির্বাচিত হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি কে হবেন?

বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ দুই মেয়াদে রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। সংবিধানের ৫০ (২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী কোনো ব্যক্তি ২ মেয়াদের বেশি রাষ্ট্রপতি পদে অধিষ্ঠিত হতে পারবেন না। এই ২টি পিরিয়ড পরপর হতে পারে এবং ২টি পিরিয়ডের মধ্যে একটি সময়ের ব্যবধান থাকতে পারে।

জনপ্রতিনিধিত্ব আদেশ, ১৯৭২ এর ধারা ৫(২) অনুসারে, সরকারের সকল নির্বাহী কর্তৃপক্ষ কমিশনকে তার কার্যাবলী সম্পাদনে সহায়তা করবে এবং এই উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রপতি কমিশনের সাথে পরামর্শ করে, জারি করতে পারেন।

আবদুল হামিদের উত্তরসূরি কে হবেন, সে বিষয়ে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে এ মুহূর্তে কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি। দলের সভাপতি শেখ হাসিনা এখনো এ বিষয়ে তার সহকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করেননি।

এ কারণে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী, কর্মীসহ সংশ্লিষ্টদের মধ্যে আলোচনায় উঠে এসেছে বেশ কয়েকজনের নাম। আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি শেষ হতে যাওয়া জাতীয় সংসদের চলতি অধিবেশনেই এ বিষয়টির সমাধান করতে হবে।

ফলে আলোচনা আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। যেহেতু আওয়ামী লীগ সংসদে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে, তাই দলের সদস্যরা আবদুল হামিদের উত্তরসূরি হিসেবে এ দল থেকে একজন প্রার্থীকে বেছে নেবেন।

৩৫০টি সংসদীয় আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের রয়েছে ৩০২টি। প্রধান বিরোধী দল ও জাতীয় পার্টির রয়েছে ২৬টি আসন। ওয়ার্কার্স পার্টির কাছে ৪টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল, বিকল্পধারা বাংলাদেশ ও গণফোরামের রয়েছে ২টি করে আসন, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন ও জাতীয় পার্টির (মঞ্জু) একটি করে আসন রয়েছে। বাকি ৩টি আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছে।

২০১৩ সালের ১৪ মার্চ তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য গেলে আবদুল হামিদকে অন্তর্বতীকালীন রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়।

জিল্লুর রহমান ৬ দিন পর মারা যান। এরপর ২২ এপ্রিল বিনা আপত্তিতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন আবদুল হামিদ। ২ দিন পর তিনি শপথ নেন। ২০১৮ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি, তিনি বিনা আপত্তিতে পুনরায় নির্বাচিত হন।

এদিকে দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে আগামী রাষ্ট্রপতি হিসেবে ৬ জনের নাম আলোচনায় রয়েছে। সূত্র জানায়, দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মসিউর রহমানের পরবর্তী রাষ্ট্রপতি হওয়ার ভালো সম্ভাবনা রয়েছে।

ট্যাগস :

রাষ্ট্রপতি নির্বাচন, আলোচনায় রয়েছেন ৬ জন

আপডেট সময় : ০৪:৩৩:২১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৩

ডেস্ক রিপোর্ট ঃ

দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেছেন বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। তার বর্তমান মেয়াদ শেষ হবে ২৩ এপ্রিল। এদিকে সংবিধান অনুযায়ী তার পুনরায় নির্বাচিত হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি কে হবেন?

বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ দুই মেয়াদে রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। সংবিধানের ৫০ (২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী কোনো ব্যক্তি ২ মেয়াদের বেশি রাষ্ট্রপতি পদে অধিষ্ঠিত হতে পারবেন না। এই ২টি পিরিয়ড পরপর হতে পারে এবং ২টি পিরিয়ডের মধ্যে একটি সময়ের ব্যবধান থাকতে পারে।

জনপ্রতিনিধিত্ব আদেশ, ১৯৭২ এর ধারা ৫(২) অনুসারে, সরকারের সকল নির্বাহী কর্তৃপক্ষ কমিশনকে তার কার্যাবলী সম্পাদনে সহায়তা করবে এবং এই উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রপতি কমিশনের সাথে পরামর্শ করে, জারি করতে পারেন।

আবদুল হামিদের উত্তরসূরি কে হবেন, সে বিষয়ে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে এ মুহূর্তে কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি। দলের সভাপতি শেখ হাসিনা এখনো এ বিষয়ে তার সহকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করেননি।

এ কারণে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী, কর্মীসহ সংশ্লিষ্টদের মধ্যে আলোচনায় উঠে এসেছে বেশ কয়েকজনের নাম। আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি শেষ হতে যাওয়া জাতীয় সংসদের চলতি অধিবেশনেই এ বিষয়টির সমাধান করতে হবে।

ফলে আলোচনা আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। যেহেতু আওয়ামী লীগ সংসদে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে, তাই দলের সদস্যরা আবদুল হামিদের উত্তরসূরি হিসেবে এ দল থেকে একজন প্রার্থীকে বেছে নেবেন।

৩৫০টি সংসদীয় আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের রয়েছে ৩০২টি। প্রধান বিরোধী দল ও জাতীয় পার্টির রয়েছে ২৬টি আসন। ওয়ার্কার্স পার্টির কাছে ৪টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল, বিকল্পধারা বাংলাদেশ ও গণফোরামের রয়েছে ২টি করে আসন, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন ও জাতীয় পার্টির (মঞ্জু) একটি করে আসন রয়েছে। বাকি ৩টি আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছে।

২০১৩ সালের ১৪ মার্চ তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য গেলে আবদুল হামিদকে অন্তর্বতীকালীন রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়।

জিল্লুর রহমান ৬ দিন পর মারা যান। এরপর ২২ এপ্রিল বিনা আপত্তিতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন আবদুল হামিদ। ২ দিন পর তিনি শপথ নেন। ২০১৮ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি, তিনি বিনা আপত্তিতে পুনরায় নির্বাচিত হন।

এদিকে দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে আগামী রাষ্ট্রপতি হিসেবে ৬ জনের নাম আলোচনায় রয়েছে। সূত্র জানায়, দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মসিউর রহমানের পরবর্তী রাষ্ট্রপতি হওয়ার ভালো সম্ভাবনা রয়েছে।