ঢাকা ০৭:১২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ইউক্রেনে ১৭ জন নিহত, আহত অর্ধশতাধিক

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০১:৫৪:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৩৮ বার পঠিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ইউক্রেনের উত্তরাঞ্চলীয় শহর চেরনিহিভে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ১৭ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন পঞ্চাশের বেশি মানুষ।

ইউক্রেন ক্রিমিয়ায় রাশিয়ার একটি সামরিক ঘাঁটিতে হামলা চালানোর কয়েক ঘণ্টা পর এ হামলা চালানো হয়।

শহরের মেয়র ও কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তিনটি ক্ষেপণাস্ত্র শহরের কেন্দ্রস্থলে আঘাত হানে, একটি ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় একটি আটতলা ভবন সরাসরি আঘাত করে। এ হামলায় তিন শিশুসহ ৬০ জনের বেশি আহত হয়েছে। খবর বিবিসি।

কিয়েভের প্রেসিডেন্টের কার্যালয় জানিয়েছে, হামলায় পাঁচটি আবাসিক ভবন, একটি হাসপাতাল, কয়েক ডজন গাড়ি এবং একটি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চেরনিহিভ রাশিয়ান সীমান্ত থেকে মাত্র ১০০ কিলোমিটার (৬০ মাইল) দূরে অবস্থিত। ২০২২ সালে রাশিয়ান আক্রমণের শুরুতে, রাশিয়া কয়েক সপ্তাহ ধরে চেরনিহিভ অঞ্চলের কিছু অংশ দখল করেছিল।

প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, ইউক্রেন যদি পর্যাপ্ত আকাশ প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম পেত তবে রাশিয়া এই হামলাটি করতে পারত না। এসময় তিনি আরও সহায়তা দেওয়ার জন্য পশ্চিমা মিত্রদের কাছে তার আবেদনের করেন।

রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ইউক্রেনে ১৭ জন নিহত, আহত অর্ধশতাধিক

আপডেট সময় : ০১:৫৪:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ইউক্রেনের উত্তরাঞ্চলীয় শহর চেরনিহিভে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ১৭ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন পঞ্চাশের বেশি মানুষ।

ইউক্রেন ক্রিমিয়ায় রাশিয়ার একটি সামরিক ঘাঁটিতে হামলা চালানোর কয়েক ঘণ্টা পর এ হামলা চালানো হয়।

শহরের মেয়র ও কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তিনটি ক্ষেপণাস্ত্র শহরের কেন্দ্রস্থলে আঘাত হানে, একটি ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় একটি আটতলা ভবন সরাসরি আঘাত করে। এ হামলায় তিন শিশুসহ ৬০ জনের বেশি আহত হয়েছে। খবর বিবিসি।

কিয়েভের প্রেসিডেন্টের কার্যালয় জানিয়েছে, হামলায় পাঁচটি আবাসিক ভবন, একটি হাসপাতাল, কয়েক ডজন গাড়ি এবং একটি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চেরনিহিভ রাশিয়ান সীমান্ত থেকে মাত্র ১০০ কিলোমিটার (৬০ মাইল) দূরে অবস্থিত। ২০২২ সালে রাশিয়ান আক্রমণের শুরুতে, রাশিয়া কয়েক সপ্তাহ ধরে চেরনিহিভ অঞ্চলের কিছু অংশ দখল করেছিল।

প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, ইউক্রেন যদি পর্যাপ্ত আকাশ প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম পেত তবে রাশিয়া এই হামলাটি করতে পারত না। এসময় তিনি আরও সহায়তা দেওয়ার জন্য পশ্চিমা মিত্রদের কাছে তার আবেদনের করেন।