ঢাকা ০৭:২৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মালয়েশিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশি পাসপোর্ট নবায়নে ধীরগতি

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৫:৪১:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ ২০২৩ ৬ বার পঠিত

হাবিব হাসান, মালয়েশিয়া প্রতিনিধি:
প্রবাস মানে দুঃখ কষ্ট হাসি কান্না কত স্বপ্ন আর আশা নিয়ে জমিজমা ঘরবাড়ি বিক্রি করে কেউবা আবার লোন করে কিস্তি এনে আয় রোজগার করে পরিবারের মুখে হাসি ফুটাতে প্রবাসে পাড়ি জমান। প্রবাসির টাকায় একটি পরিবার যেমন উন্নত হচ্ছে তেমনি বাংলাদেশ সরকারও লাভবান হচ্ছেন । এজন্য প্রবাসিদের বলা হয় রেমিটেন্স যোদ্ধা। অন্য দেশের কথা নাই বললাম মালয়েশিয়া প্রবাসিদের কথাই বলছি, মালয়েশিয়াতে নতুন সরকার গঠন হয়েছে। এ সরকার অবৈধ প্রবাসিদের বৈধতা হওয়ার সুযোগ ঘোষনা করেছেন। এখন প্রবাসিদের অনেকেরই পাসপোর্ট নেই আবার কারো পাসপোর্ট নবায়ন করতে হবে। যারা বৈধ আছেন তাদেরও পাসপোর্ট নবায়ন করা প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) আর ই-পাসপোর্ট যেটাই বলি না কেন যেন সোনার হরিণ। এ কারণে অধিকাংশ প্রবাসীর পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হওয়ায় তারা অবৈধ হওয়ার ঝুঁকিতে পড়েছেন। নবায়নের জন্য আবেদন করলে ৪-৫ মাসেও মিলছে না নতুন পাসপোর্ট।
ফলে বাংলাদেশি প্রবাসীরা চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ইন্ডিয়া তাদের পাসপোর্ট করতে সময় লাগে ১০ থেকে ১৫ দিন তাহলে কেন এ ডিজিটাল যুগে আমরা এখনও পিছিয়ে আছি? প্রবাসিরা অভিযোগ করে বলেন, ‘অনেক বছর পরে বৈধ হওয়ার সুযোগ পেয়েছি এখন পাসপোর্ট করতে দিয়ে যদি আড়াই মাস তিন মাস চার মাস সময় লেগে যায় তাহলে তো এসুযোগ হাত ছাড়া হয়ে যাবে। আমাদের সরকার কি এর কোন ব্যবস্থা নিতে পারেন না? প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তো প্রবাসীদের দুঃখ-কষ্ট বুঝেন। তিনি যদি আমাদের দিকে একটু নজর দিতেন পাসপোর্ট নবায়ন বা নতুন যদি ২০ থেকে ৩০ দিনে ডেলিভারী দেওয়া যেতো তাহলে আমরা লাখ লাখ প্রবাসিরা পাসপোর্ট নবায়ন ভোগান্তি থেকে মুক্তি পেতাম। দ্রুত বৈধতা হওয়ার সুযোগ থাকতো।’

মালয়েশিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশি পাসপোর্ট নবায়নে ধীরগতি

আপডেট সময় : ০৫:৪১:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ ২০২৩

হাবিব হাসান, মালয়েশিয়া প্রতিনিধি:
প্রবাস মানে দুঃখ কষ্ট হাসি কান্না কত স্বপ্ন আর আশা নিয়ে জমিজমা ঘরবাড়ি বিক্রি করে কেউবা আবার লোন করে কিস্তি এনে আয় রোজগার করে পরিবারের মুখে হাসি ফুটাতে প্রবাসে পাড়ি জমান। প্রবাসির টাকায় একটি পরিবার যেমন উন্নত হচ্ছে তেমনি বাংলাদেশ সরকারও লাভবান হচ্ছেন । এজন্য প্রবাসিদের বলা হয় রেমিটেন্স যোদ্ধা। অন্য দেশের কথা নাই বললাম মালয়েশিয়া প্রবাসিদের কথাই বলছি, মালয়েশিয়াতে নতুন সরকার গঠন হয়েছে। এ সরকার অবৈধ প্রবাসিদের বৈধতা হওয়ার সুযোগ ঘোষনা করেছেন। এখন প্রবাসিদের অনেকেরই পাসপোর্ট নেই আবার কারো পাসপোর্ট নবায়ন করতে হবে। যারা বৈধ আছেন তাদেরও পাসপোর্ট নবায়ন করা প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) আর ই-পাসপোর্ট যেটাই বলি না কেন যেন সোনার হরিণ। এ কারণে অধিকাংশ প্রবাসীর পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হওয়ায় তারা অবৈধ হওয়ার ঝুঁকিতে পড়েছেন। নবায়নের জন্য আবেদন করলে ৪-৫ মাসেও মিলছে না নতুন পাসপোর্ট।
ফলে বাংলাদেশি প্রবাসীরা চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ইন্ডিয়া তাদের পাসপোর্ট করতে সময় লাগে ১০ থেকে ১৫ দিন তাহলে কেন এ ডিজিটাল যুগে আমরা এখনও পিছিয়ে আছি? প্রবাসিরা অভিযোগ করে বলেন, ‘অনেক বছর পরে বৈধ হওয়ার সুযোগ পেয়েছি এখন পাসপোর্ট করতে দিয়ে যদি আড়াই মাস তিন মাস চার মাস সময় লেগে যায় তাহলে তো এসুযোগ হাত ছাড়া হয়ে যাবে। আমাদের সরকার কি এর কোন ব্যবস্থা নিতে পারেন না? প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তো প্রবাসীদের দুঃখ-কষ্ট বুঝেন। তিনি যদি আমাদের দিকে একটু নজর দিতেন পাসপোর্ট নবায়ন বা নতুন যদি ২০ থেকে ৩০ দিনে ডেলিভারী দেওয়া যেতো তাহলে আমরা লাখ লাখ প্রবাসিরা পাসপোর্ট নবায়ন ভোগান্তি থেকে মুক্তি পেতাম। দ্রুত বৈধতা হওয়ার সুযোগ থাকতো।’