ঢাকা ০২:০৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মানিকগঞ্জে চোরাই ট্রাকের ইঞ্জিন সহ গ্রেফতার ৩

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৫:৪০:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৩ ২১ বার পঠিত

এস.এম নুরুজজ্জামান, মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি:
মানিকগঞ্জে চোরাই সন্দিগ্ধ ট্রাকের ইঞ্জিনসহ কাটা অংশ বিশেষ ও চোরাই মালামাল পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত ১টি ট্রাক (রেজি: নং-ঢাকা মেট্টো-ট-১৬-০১৫৩) উদ্ধারসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। উদ্ধারকৃত ট্রাকটির মূল্য আনুুমানিক এক কোটি একত্রিশ লক্ষ ত্রিশ হাজার টাকা।
বৃহস্পতিবার (২৭ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২টার দিকে জেলার সাটুরিয়া উপজেলার কামতা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে মোঃ খোরশেদ আলমের একতা ট্রেডিংস এর ভিতরে গোডাউনের সেটের সামনের ফাঁকা জায়গা হতে তাদের গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সদর উপজেলার গোলড়া চরখন্ড এলাকার মোঃ খোরশেদ আলমের ছেলে মাহাবুব আলম রাকিব (২৭), সিংগাইর উপজেলার পূর্ব বান্দাইল গ্রামের আলাউদ্দিন হোসেনের ছেলে মোঃ সাদ্দাম হোসেন (৩০) ও সদর উপজেলার ঢাকুয়াপাড়া গ্রামের মোঃ হায়াত আলী বিশ্বাসের ছেলে মোঃ বাদল বিশ্বাস (৩৮)।
আজ সকালে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন।
প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়- আসামি মাহাবুব আলম রাকিব বিভিন্ন জেলা হতে ট্রাকসহ বিভিন্ন চোরাই গাড়ি ক্রয় করার মাধ্যমে সংগ্রহ করে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার জাগীর (মেঘশিমুল) এলাকার মামুনের ভাড়া দেওয়া গোডাউনের সামনে ফাঁকা জায়গায় নিয়ে কেটে খন্ড খন্ড করে বিভিন্ন ভাঙ্গারীর দোকানে বিক্রয় করে এবং ট্রাকের ইঞ্জিনগুলো একতা ট্রেডিংস নামক গোডাউনের ভিতরে কৌশলে লুকিয়ে রাখে।
আসামি মাহাবুব আলম রাকিবের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তাকে সঙ্গে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে চোরাই সন্দিগ্ধ ট্রাকের কাটা অংশ বোঝাই একটি ট্রাক ও চালক মোঃ সাদ্দাম হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে আসামি মাহাবুব আলম রাকিব তার সঙ্গে জাগীর (পাট গবেষনা ইনস্টিটিউট এর পাশে) এলাকার আয়নাল হকের ছেলে আমিন (২৫), জাগীর মেঘশিমুল এলাকার সাইফুল মুন্সীর ছেলে শাকিল (২২), পারভেজ, মতিনসগ অজ্ঞাতনাম ৭/৮ জন লোক বিভিন্ন জায়গা হইতে চোরাইকৃত ট্রাক ক্রয় করার মাধ্যমে সংগ্রহ করিয়া ট্রাক কেটে ছোট ছোট খন্ড করিয়া উদ্ধার হওয়া ট্রাকে বোঝাই করিয়া বিভিন্ন স্থানে বিক্রয় করে মর্মে স্বীকার করে।
মাহাবুব আলম রাকিব জানায়- কাটা ট্র্রাকের চাকা গুলো মোঃ বাদল বিশ্বাসের নিকট বিক্রয় করা হয়েছে। উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে মানিকগঞ্জ জেলার মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার কাইলানী এলাকার ছবেদ মার্কেট এর সামনে থেকে শুক্রবার দুপুর দুইটার দিকে ১৪টি চাকা এবং ৫টি রিংসহ বাদল বিশ্বাসকে আটক করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে বিভিন্ন জায়গা হইতে চোরাই ট্রাক ক্রয় করার মাধ্যমে সংগ্রহ করিয়া দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রয় করেন মর্মে স্বীকার করেন।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন জানান, আসামি মাহাবুব আলম রাকিবের পিতা মোঃ খোরশেদ আলমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছিল। ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে এ ঘটনার সাথে তার সংশ্লিষ্টতা না পাওয়ায় মুচলেকা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া তদন্তে আর কারো সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ বিষয়ে সাটুরিয়া থানায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি।

মানিকগঞ্জে চোরাই ট্রাকের ইঞ্জিন সহ গ্রেফতার ৩

আপডেট সময় : ০৫:৪০:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৩

এস.এম নুরুজজ্জামান, মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি:
মানিকগঞ্জে চোরাই সন্দিগ্ধ ট্রাকের ইঞ্জিনসহ কাটা অংশ বিশেষ ও চোরাই মালামাল পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত ১টি ট্রাক (রেজি: নং-ঢাকা মেট্টো-ট-১৬-০১৫৩) উদ্ধারসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। উদ্ধারকৃত ট্রাকটির মূল্য আনুুমানিক এক কোটি একত্রিশ লক্ষ ত্রিশ হাজার টাকা।
বৃহস্পতিবার (২৭ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২টার দিকে জেলার সাটুরিয়া উপজেলার কামতা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে মোঃ খোরশেদ আলমের একতা ট্রেডিংস এর ভিতরে গোডাউনের সেটের সামনের ফাঁকা জায়গা হতে তাদের গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সদর উপজেলার গোলড়া চরখন্ড এলাকার মোঃ খোরশেদ আলমের ছেলে মাহাবুব আলম রাকিব (২৭), সিংগাইর উপজেলার পূর্ব বান্দাইল গ্রামের আলাউদ্দিন হোসেনের ছেলে মোঃ সাদ্দাম হোসেন (৩০) ও সদর উপজেলার ঢাকুয়াপাড়া গ্রামের মোঃ হায়াত আলী বিশ্বাসের ছেলে মোঃ বাদল বিশ্বাস (৩৮)।
আজ সকালে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন।
প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়- আসামি মাহাবুব আলম রাকিব বিভিন্ন জেলা হতে ট্রাকসহ বিভিন্ন চোরাই গাড়ি ক্রয় করার মাধ্যমে সংগ্রহ করে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার জাগীর (মেঘশিমুল) এলাকার মামুনের ভাড়া দেওয়া গোডাউনের সামনে ফাঁকা জায়গায় নিয়ে কেটে খন্ড খন্ড করে বিভিন্ন ভাঙ্গারীর দোকানে বিক্রয় করে এবং ট্রাকের ইঞ্জিনগুলো একতা ট্রেডিংস নামক গোডাউনের ভিতরে কৌশলে লুকিয়ে রাখে।
আসামি মাহাবুব আলম রাকিবের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তাকে সঙ্গে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে চোরাই সন্দিগ্ধ ট্রাকের কাটা অংশ বোঝাই একটি ট্রাক ও চালক মোঃ সাদ্দাম হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে আসামি মাহাবুব আলম রাকিব তার সঙ্গে জাগীর (পাট গবেষনা ইনস্টিটিউট এর পাশে) এলাকার আয়নাল হকের ছেলে আমিন (২৫), জাগীর মেঘশিমুল এলাকার সাইফুল মুন্সীর ছেলে শাকিল (২২), পারভেজ, মতিনসগ অজ্ঞাতনাম ৭/৮ জন লোক বিভিন্ন জায়গা হইতে চোরাইকৃত ট্রাক ক্রয় করার মাধ্যমে সংগ্রহ করিয়া ট্রাক কেটে ছোট ছোট খন্ড করিয়া উদ্ধার হওয়া ট্রাকে বোঝাই করিয়া বিভিন্ন স্থানে বিক্রয় করে মর্মে স্বীকার করে।
মাহাবুব আলম রাকিব জানায়- কাটা ট্র্রাকের চাকা গুলো মোঃ বাদল বিশ্বাসের নিকট বিক্রয় করা হয়েছে। উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে মানিকগঞ্জ জেলার মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার কাইলানী এলাকার ছবেদ মার্কেট এর সামনে থেকে শুক্রবার দুপুর দুইটার দিকে ১৪টি চাকা এবং ৫টি রিংসহ বাদল বিশ্বাসকে আটক করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে বিভিন্ন জায়গা হইতে চোরাই ট্রাক ক্রয় করার মাধ্যমে সংগ্রহ করিয়া দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রয় করেন মর্মে স্বীকার করেন।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন জানান, আসামি মাহাবুব আলম রাকিবের পিতা মোঃ খোরশেদ আলমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছিল। ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে এ ঘটনার সাথে তার সংশ্লিষ্টতা না পাওয়ায় মুচলেকা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া তদন্তে আর কারো সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ বিষয়ে সাটুরিয়া থানায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি।