ঢাকা ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রযুক্তিনির্ভর অপরাধ দমনেও পুলিশকে প্রস্তুত থাকতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৪:৩৬:৩৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ২১ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি :

প্রযুক্তিনির্ভর অপরাধ দমনেও পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, প্রযুক্তির উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে নতুন নতুন অপরাধের উদ্ভব হচ্ছে। তাদের সঠিকভাবে দমনে পুলিশকে প্রস্তুত থাকতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তির উৎকর্ষতা যত বৃদ্ধি পাচ্ছে অপরাধও কিন্তু ভিন্ন ভিন্নভাবে হচ্ছে। নতুন নতুন মাত্রায় অপরাধ দেখা দিচ্ছে। সেগুলো যথাযথভাবে মোকাবিলা করার জন্য আমাদের পুলিশ বাহিনী যেন প্রস্তুত থাকে। এ বিষয়ে আমরা যথেষ্ট যত্নবান এবং নজর দিচ্ছি। কারণ, ক্রাইমের সঙ্গে সঙ্গে সেটাকে মোকাবিলা করার সিস্টেমটা যদি না চলে তাহলে কিন্তু যথাযথভাবে সেটা (মোকাবিলা) করা যায় না।

তিনি বলেন, যে কোনো কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষ ও শিশুদের আপনজন বিবেচনা করে তাদের প্রতি দায়িত্ব পালন করবেন, তাদের সেবা করবেন, এটাই সবাই চাই।

পুলিশকে জনগণের বন্ধু উল্লেখ করে সরকারপ্রধান বলেন, আমাদের পুলিশ বাহিনী এখন জনগণের বন্ধু হিসেবে কাজ করছে। আজকাল মানুষ আগের মতো পুলিশকে ভয় না, পুলিশের ওপর মানুষের আস্থা ফিরেছে। সাধারণ মানুষ এখন পুলিশকে বন্ধু ভাবে, আস্থার জায়গা মনে করে।

শেখ হাসিনা বলেন, এই যে আগুন দেওয়া, পুলিশকে মারা, পুলিশকে আগুনের মধ্যে ফেলে দেওয়া, এই ঘটনাগুলোর মামলাগুলো কিন্তু যথাযথভাবে চলে না। আমি মনে করি যারা এ ধরনের ক্রাইম করে তাদের মামলা এবং সাজাটা যদি দ্রুত হয়ে যায় তাহলে ভবিষ্যতে আর কেউ এমন সাহস পাবে না।

তিনি বলেন, ভবিষ্যতে কেউ এভাবে হামলা, পুলিশের ওপর হামলা, রাজনীতির নামে আইন নিজের হাতে তুলে নিয়ে সন্ত্রাস, আইনশৃঙ্খলার অবনতি, জনজীবনের ক্ষতি, জাতীয় সম্পদের ক্ষতি করতে পারবে না। তা না হলে পুলিশকে এসব বিষয়ে অবিচল থাকতে হবে। যখনই প্রয়োজন উপযুক্ত ভূমিকা পালন করতে হবে।

দেশের অগ্রগতির চিত্র তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, টানা পনের বছর ক্ষমতায় থাকার পর আজকে আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশকে কেউ আর ওই তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের চোখে দেখে না। বাংলাদেশ সারা বিশ্বে এখন নিজের একটা স্থান করে নিতে পেরেছে। এখন সবাই বাংলাদেশকে উন্নয়নের মডেল হিসেবে দেখে।

প্রযুক্তিনির্ভর অপরাধ দমনেও পুলিশকে প্রস্তুত থাকতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

আপডেট সময় : ০৪:৩৬:৩৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

নিজস্ব প্রতিনিধি :

প্রযুক্তিনির্ভর অপরাধ দমনেও পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, প্রযুক্তির উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে নতুন নতুন অপরাধের উদ্ভব হচ্ছে। তাদের সঠিকভাবে দমনে পুলিশকে প্রস্তুত থাকতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তির উৎকর্ষতা যত বৃদ্ধি পাচ্ছে অপরাধও কিন্তু ভিন্ন ভিন্নভাবে হচ্ছে। নতুন নতুন মাত্রায় অপরাধ দেখা দিচ্ছে। সেগুলো যথাযথভাবে মোকাবিলা করার জন্য আমাদের পুলিশ বাহিনী যেন প্রস্তুত থাকে। এ বিষয়ে আমরা যথেষ্ট যত্নবান এবং নজর দিচ্ছি। কারণ, ক্রাইমের সঙ্গে সঙ্গে সেটাকে মোকাবিলা করার সিস্টেমটা যদি না চলে তাহলে কিন্তু যথাযথভাবে সেটা (মোকাবিলা) করা যায় না।

তিনি বলেন, যে কোনো কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষ ও শিশুদের আপনজন বিবেচনা করে তাদের প্রতি দায়িত্ব পালন করবেন, তাদের সেবা করবেন, এটাই সবাই চাই।

পুলিশকে জনগণের বন্ধু উল্লেখ করে সরকারপ্রধান বলেন, আমাদের পুলিশ বাহিনী এখন জনগণের বন্ধু হিসেবে কাজ করছে। আজকাল মানুষ আগের মতো পুলিশকে ভয় না, পুলিশের ওপর মানুষের আস্থা ফিরেছে। সাধারণ মানুষ এখন পুলিশকে বন্ধু ভাবে, আস্থার জায়গা মনে করে।

শেখ হাসিনা বলেন, এই যে আগুন দেওয়া, পুলিশকে মারা, পুলিশকে আগুনের মধ্যে ফেলে দেওয়া, এই ঘটনাগুলোর মামলাগুলো কিন্তু যথাযথভাবে চলে না। আমি মনে করি যারা এ ধরনের ক্রাইম করে তাদের মামলা এবং সাজাটা যদি দ্রুত হয়ে যায় তাহলে ভবিষ্যতে আর কেউ এমন সাহস পাবে না।

তিনি বলেন, ভবিষ্যতে কেউ এভাবে হামলা, পুলিশের ওপর হামলা, রাজনীতির নামে আইন নিজের হাতে তুলে নিয়ে সন্ত্রাস, আইনশৃঙ্খলার অবনতি, জনজীবনের ক্ষতি, জাতীয় সম্পদের ক্ষতি করতে পারবে না। তা না হলে পুলিশকে এসব বিষয়ে অবিচল থাকতে হবে। যখনই প্রয়োজন উপযুক্ত ভূমিকা পালন করতে হবে।

দেশের অগ্রগতির চিত্র তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, টানা পনের বছর ক্ষমতায় থাকার পর আজকে আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশকে কেউ আর ওই তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের চোখে দেখে না। বাংলাদেশ সারা বিশ্বে এখন নিজের একটা স্থান করে নিতে পেরেছে। এখন সবাই বাংলাদেশকে উন্নয়নের মডেল হিসেবে দেখে।