ঢাকা ০৫:০২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের জমিসহ ঘর পেলেন ৪০ পরিবার

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৫:৫৬:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩ ৬ বার পঠিত

শাহরিয়ার আহমেদ রিয়াজ ,শরীয়তপুর প্রতিনিধি:
‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’র আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় তৃতীয় ও ৪র্থ পর্যায়ে জমিসহ ঘর পেয়েছেন শরীয়তপুর সদর উপজেলার ৪০ পরিবার।
মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৩ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আজ সকালে উপহারের ঘর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভার্চুয়ালি উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে দেশের ৩৯ হাজার ৩শ’ ৬৫ টি পরিবার খুজে পেলেন স্বপ্নের ও আস্থার ঠিকানা। একই সাথে শরীয়তপুর সদর উপজেলার ৪০টি পরিবারকে ঘর প্রদানের মধ্যদিয়ে উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ উপলক্ষে সদর উপজেলা মডেল মসজিদ মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক মো. পারভেজ হাসানের সভাপতিত্বে হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শরীয়পতুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য ইকাবাল হোসেন অপু। বিশেষ অতিথি ছিলেন, শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র পারভেজ হাসান জন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র, শরীয়তপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমূখ। এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধিসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
এসময় শরীয়তপুর সদর উপজেলার তুলসার ইউনিয়নের উপরগাও গ্রামের ভিক্ষুক মতিউর রহমান (৬২) জমির দলিল সহ ঘরের চাবি হাতে পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, ‘শেখ মুজিবের মেয়ে শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী না হলে আমি এই ঘর পেতাম না। এই বয়সে অনেক সরকার দেখেছি, কিন্তু আমাদের জন্য স্বপ্নের এমন জীবনের কথা কেউ ভাবেনি কিছু করেও নাই। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী আছেন বলেই আমার মত অসহায়রাও এখন থেকে পাকা ঘরে বাকি জীবন নিরাপদে কাটাতে পারবে। প্রধানমন্ত্রীর জন্য খাস দিলে দোয়া করি আল্লাহ তাঁকে সরা জীবন প্রধানমন্ত্রী রাখুন।’
সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, দলিল ও ঘরের চাবি হস্তান্তরকালে অসহায় মানুষগুলোর আবেগময় চোখের ভাষা সকল প্রাপ্তিকেও হার মানায়। এ অনুভূতির মধ্যে শ্রদ্ধা, কৃতজ্ঞতা, ভালোবাসা মিলে মিশে একাকার। এই অসহায় পরিবারগুলোই শুধু নয় সাধারণ মানুষের মধ্যেও রয়েছে কৃতজ্ঞতার ভাষা। অত্যন্ত আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সাথে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া দায়িত্ব পালন করতে পেরে আমরাও বেশ পরিতৃপ্ত। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানানই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে এমন মহৎ কাজের অংশীদার করার জন্য। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইকবাল হোসেন অপু এমপি বলেন, জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশের অসহায় পরিবারের প্রতি দায়িত্ববোধের মধ্যে সততা, আন্তরিকতা মমত্ববোধের কারনেই আজ এই পরিবারগুলো খুজে পেয়েছেন নিরাপদ আস্থার ঠিকানা। যা শুধু বাংলাদেশ নয় পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল ঘটনা। প্রধানমন্ত্রী শুধু নিজেই সততা, দায়িত্ববোধ ও মানবিক কাজ করেননি, আওয়ামী লীগের সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মীদেরকেও অনুপ্রাণীত করেছেন। যা বাংলাদেশকে আজ নিয়ে গেছে অনন্য উচ্চতায়। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের জমিসহ ঘর পেলেন ৪০ পরিবার

আপডেট সময় : ০৫:৫৬:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩

শাহরিয়ার আহমেদ রিয়াজ ,শরীয়তপুর প্রতিনিধি:
‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’র আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় তৃতীয় ও ৪র্থ পর্যায়ে জমিসহ ঘর পেয়েছেন শরীয়তপুর সদর উপজেলার ৪০ পরিবার।
মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৩ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আজ সকালে উপহারের ঘর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভার্চুয়ালি উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে দেশের ৩৯ হাজার ৩শ’ ৬৫ টি পরিবার খুজে পেলেন স্বপ্নের ও আস্থার ঠিকানা। একই সাথে শরীয়তপুর সদর উপজেলার ৪০টি পরিবারকে ঘর প্রদানের মধ্যদিয়ে উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ উপলক্ষে সদর উপজেলা মডেল মসজিদ মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক মো. পারভেজ হাসানের সভাপতিত্বে হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শরীয়পতুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য ইকাবাল হোসেন অপু। বিশেষ অতিথি ছিলেন, শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র পারভেজ হাসান জন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র, শরীয়তপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমূখ। এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধিসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
এসময় শরীয়তপুর সদর উপজেলার তুলসার ইউনিয়নের উপরগাও গ্রামের ভিক্ষুক মতিউর রহমান (৬২) জমির দলিল সহ ঘরের চাবি হাতে পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, ‘শেখ মুজিবের মেয়ে শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী না হলে আমি এই ঘর পেতাম না। এই বয়সে অনেক সরকার দেখেছি, কিন্তু আমাদের জন্য স্বপ্নের এমন জীবনের কথা কেউ ভাবেনি কিছু করেও নাই। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী আছেন বলেই আমার মত অসহায়রাও এখন থেকে পাকা ঘরে বাকি জীবন নিরাপদে কাটাতে পারবে। প্রধানমন্ত্রীর জন্য খাস দিলে দোয়া করি আল্লাহ তাঁকে সরা জীবন প্রধানমন্ত্রী রাখুন।’
সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, দলিল ও ঘরের চাবি হস্তান্তরকালে অসহায় মানুষগুলোর আবেগময় চোখের ভাষা সকল প্রাপ্তিকেও হার মানায়। এ অনুভূতির মধ্যে শ্রদ্ধা, কৃতজ্ঞতা, ভালোবাসা মিলে মিশে একাকার। এই অসহায় পরিবারগুলোই শুধু নয় সাধারণ মানুষের মধ্যেও রয়েছে কৃতজ্ঞতার ভাষা। অত্যন্ত আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সাথে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া দায়িত্ব পালন করতে পেরে আমরাও বেশ পরিতৃপ্ত। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানানই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে এমন মহৎ কাজের অংশীদার করার জন্য। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইকবাল হোসেন অপু এমপি বলেন, জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশের অসহায় পরিবারের প্রতি দায়িত্ববোধের মধ্যে সততা, আন্তরিকতা মমত্ববোধের কারনেই আজ এই পরিবারগুলো খুজে পেয়েছেন নিরাপদ আস্থার ঠিকানা। যা শুধু বাংলাদেশ নয় পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল ঘটনা। প্রধানমন্ত্রী শুধু নিজেই সততা, দায়িত্ববোধ ও মানবিক কাজ করেননি, আওয়ামী লীগের সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মীদেরকেও অনুপ্রাণীত করেছেন। যা বাংলাদেশকে আজ নিয়ে গেছে অনন্য উচ্চতায়। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।