ঢাকা ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নরসিংদীর পলাশে এতিম ছাত্রদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে শিক্ষা সফর

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৭:৩০:০৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মার্চ ২০২৩ ৯ বার পঠিত

তারেক পাঠান, নরসিংদী প্রতিনিধি :
পড়ালেখার পাশাপাশি এতিম ছাত্রদের মনকে বিকাশিত করতে নরসিংদী পলাশের গজারিয়া ইউনিয়নে তালতলী এলাকায় অবস্থিত ইছখালী দারুল মাছাকীন ইসলামিয়া এতিমখানার শিক্ষার্থীদের গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে ২০২৩ইং শিক্ষা সফর অনুষ্ঠিত হয়েছে।  আজ দিনব্যাপী অত্র এতিমখানার সভাপতি ও ইছাখালী ফাযিল ডিগ্রি মাদরাসার মুতাওয়াল্লী মো: নজরুল ইসলাম সিকদারের সভাপতিত্বে এই শিক্ষার সফর অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় অত্র এতিমখানার মুহতামিম মুফতি রাকিবুল ইসলাম বাবুপুরী, শিক্ষক মাওলানা, আরিফুল ইসলাম গাজীপুরী, মওলানা ওবায়দুল্লাহ, জাতীয় দৈনিক আমার সংবাদ ও ইংরেজি দৈনিক The Bangladesh Today  (দি বাংলাদেশ টুডে) পত্রিকার সাংবাদিক তারেক পাঠান, মাওলানা নজরুল ইসলাম, সমাজ সেবক মোশাররফ আকন্দ, জহিরুল পাঠানসহ অত্র প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ এলাকার গণমান্যব্যক্তিবর্গ এ সফরে অংশগ্রহণ করেন।
অত্র এতিমখানার মুহতামিম মুফতি রাকিবুল ইসলাম বাবুপুরী বলেন, ‘ছাত্র জীবনের প্রধান উদ্দেশ্য পড়াশুনা করা। কিন্তু ছাত্ররা সারাক্ষণ ক্লাস, পড়া, পরীক্ষা এসবের মাঝে থাকতে থাকতে এক সময় পড়াশুনার প্রতি একঘেয়েমী চলে আসে। সামান্য একটু অবসরের জন্য মন আকুল হয়ে উঠে। লেখাপড়ার বেশি চাপে অনেক সময় ছাত্রছাত্রীরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। শারীরিক অসুস্থতা মনকেও প্রভাবিত করে। তাই পড়াশুনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের চিত্তবিনোদনের প্রয়োজন আছে। এই বিনোদনের সর্বোৎকৃষ্ট উপায় শিক্ষা সফর। শিক্ষা সফরের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা যেমন জ্ঞান অর্জন করতে পারে তেমনি শারীরিক ও মানসিকভাবেও প্রশান্তি লাভ করতে পারে।’
অত্র এতিমখানার সভাপতি ও ইছাখালী ফাযিল ডিগ্রি মাদরাসার মুতাওয়াল্লী মো: নজরুল ইসলাম সিকদার জানান, ‘শিক্ষাসফর শিক্ষার অন্যতম একটি অংশ। বই থেকে অর্জিত জ্ঞান অন্তরে ধারণ করে শিক্ষার্থীরা শিক্ষা সফরে যায় সে অর্জিত জ্ঞান প্রত্যক্ষ করতে। বইয়ের পড়া আর চোখের দেখা এই দুইয়ে মিলে পরিপূর্ণভাবে আলোকিত হয়ে উঠে শিক্ষার্থীর অন্তর্লোক। শিক্ষা সফর শিক্ষার্থীদের যেমন মুক্তি দেয় লেখাপড়ার একঘেয়েমী থেকে, তেমনি তাদের পুস্তক লব্ধ জ্ঞানকে দৃঢ়তা ও স্থায়িত্ব প্রদান করে। শিক্ষা সফরে গিয়ে বিশাল পৃথিবীর অপরিমিত সৌন্দর্য অবলোকনের পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা তাদের সুপ্ত প্রতিভা বিকশিত করারও সুযোগ পায়।’

নরসিংদীর পলাশে এতিম ছাত্রদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে শিক্ষা সফর

আপডেট সময় : ০৭:৩০:০৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মার্চ ২০২৩

তারেক পাঠান, নরসিংদী প্রতিনিধি :
পড়ালেখার পাশাপাশি এতিম ছাত্রদের মনকে বিকাশিত করতে নরসিংদী পলাশের গজারিয়া ইউনিয়নে তালতলী এলাকায় অবস্থিত ইছখালী দারুল মাছাকীন ইসলামিয়া এতিমখানার শিক্ষার্থীদের গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে ২০২৩ইং শিক্ষা সফর অনুষ্ঠিত হয়েছে।  আজ দিনব্যাপী অত্র এতিমখানার সভাপতি ও ইছাখালী ফাযিল ডিগ্রি মাদরাসার মুতাওয়াল্লী মো: নজরুল ইসলাম সিকদারের সভাপতিত্বে এই শিক্ষার সফর অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় অত্র এতিমখানার মুহতামিম মুফতি রাকিবুল ইসলাম বাবুপুরী, শিক্ষক মাওলানা, আরিফুল ইসলাম গাজীপুরী, মওলানা ওবায়দুল্লাহ, জাতীয় দৈনিক আমার সংবাদ ও ইংরেজি দৈনিক The Bangladesh Today  (দি বাংলাদেশ টুডে) পত্রিকার সাংবাদিক তারেক পাঠান, মাওলানা নজরুল ইসলাম, সমাজ সেবক মোশাররফ আকন্দ, জহিরুল পাঠানসহ অত্র প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ এলাকার গণমান্যব্যক্তিবর্গ এ সফরে অংশগ্রহণ করেন।
অত্র এতিমখানার মুহতামিম মুফতি রাকিবুল ইসলাম বাবুপুরী বলেন, ‘ছাত্র জীবনের প্রধান উদ্দেশ্য পড়াশুনা করা। কিন্তু ছাত্ররা সারাক্ষণ ক্লাস, পড়া, পরীক্ষা এসবের মাঝে থাকতে থাকতে এক সময় পড়াশুনার প্রতি একঘেয়েমী চলে আসে। সামান্য একটু অবসরের জন্য মন আকুল হয়ে উঠে। লেখাপড়ার বেশি চাপে অনেক সময় ছাত্রছাত্রীরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। শারীরিক অসুস্থতা মনকেও প্রভাবিত করে। তাই পড়াশুনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের চিত্তবিনোদনের প্রয়োজন আছে। এই বিনোদনের সর্বোৎকৃষ্ট উপায় শিক্ষা সফর। শিক্ষা সফরের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা যেমন জ্ঞান অর্জন করতে পারে তেমনি শারীরিক ও মানসিকভাবেও প্রশান্তি লাভ করতে পারে।’
অত্র এতিমখানার সভাপতি ও ইছাখালী ফাযিল ডিগ্রি মাদরাসার মুতাওয়াল্লী মো: নজরুল ইসলাম সিকদার জানান, ‘শিক্ষাসফর শিক্ষার অন্যতম একটি অংশ। বই থেকে অর্জিত জ্ঞান অন্তরে ধারণ করে শিক্ষার্থীরা শিক্ষা সফরে যায় সে অর্জিত জ্ঞান প্রত্যক্ষ করতে। বইয়ের পড়া আর চোখের দেখা এই দুইয়ে মিলে পরিপূর্ণভাবে আলোকিত হয়ে উঠে শিক্ষার্থীর অন্তর্লোক। শিক্ষা সফর শিক্ষার্থীদের যেমন মুক্তি দেয় লেখাপড়ার একঘেয়েমী থেকে, তেমনি তাদের পুস্তক লব্ধ জ্ঞানকে দৃঢ়তা ও স্থায়িত্ব প্রদান করে। শিক্ষা সফরে গিয়ে বিশাল পৃথিবীর অপরিমিত সৌন্দর্য অবলোকনের পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা তাদের সুপ্ত প্রতিভা বিকশিত করারও সুযোগ পায়।’