ঢাকা ০৮:৩৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo নরসিংদীতে সংবর্ধনা নেওয়ার সময় ভূয়া ম্যাজিস্ট্রেট আটক, তিন মাসের সাজা Logo দেশের বাজারে বয়া এর নতুন অল ইন ওয়ান ওয়ারলেস মাইক্রোফোন Logo সাড়ে চারশ কোটির হীরার নেকলেসে নজর কাড়লেন প্রিয়াঙ্কা Logo  পৃথিবীতে কোন দেশের মেয়েরা সবচেয়ে বেশি সুন্দরী Logo বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেশের গণতন্ত্র-মৌলিক অধিকারের পরিপন্থী Logo ঈদের সময় ১১ দিন বাল্কহেড চলাচল বন্ধ Logo বিএসআরএফ বার্তা’র মোড়ক উম্মোচন করলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী Logo টানা ছয় ম্যাচ জিতে প্লে অফ নিশ্চিত করলেও শেষমেশ বিদায় নিলো বেঙ্গালুরু Logo গাজায় মসজিদে ইসরায়েলি হামলা, ১০ শিশুসহ নিহত ১৬ Logo এমপি আনোয়ারুল হত্যাকাণ্ড: ঢাকায় আসছে ভারতীয় পুলিশের স্পেশাল টিম

তিব্বতের হোটেলে বিছানার নিচে খুঁজে পাওয়া গেলো পঁচা লাশ

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০১:৫৮:১৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ মে ২০২৩ ১০ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি:
গত ২১ এপ্রিল, তিব্বতের লাসার একটি হোটেলে তীব্র দুর্গন্ধের উৎস খুঁজতে গিয়ে বিছানার নিচে একটি পচনশীল লাশ পাওয়া যায়। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, ঝাং নামের এক ব্যক্তি চীন থেকে তিব্বতে গিয়েছিলেন। হোটেলে তার রুমে প্রবেশ করার সাথে সাথেই তীব্র দুর্গন্ধ পেল। কোথা থেকে গন্ধ আসছে বুঝতে পারছে না। গন্ধ উপেক্ষা করে বিছানায় শুয়ে পড়ল। তিন ঘণ্টা পর ঘুম ভাঙল। কিন্তু এখনও দুর্গন্ধ।
হোটেল কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করার পর তাকে আরেকটি রুম দেওয়া হয় এবং গন্ধের উৎস খুঁজতে গিয়ে কর্তৃপক্ষ বিছানার নিচে একটি পঁচা লাশ দেখতে পায়। পুলিশ জানায়, ঘটনার তদন্ত শুরু করার পর হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করা হয়েছে।

ঝাং যে হোটেলে ছিলেন তা হল গুজহাং সুহুয়া ইন। হোটেলটি তার উষ্ণ বাতি এবং কাঠের বারান্দার জন্য জনপ্রিয়। বিশেষ করে ফটোগ্রাফির জন্য। সোশ্যাল মিডিয়ায় হোটেল ভ্রমণের অনেক ছবি দেখা যায়। ঝাং তার হোটেলে থাকার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে অনলাইনে একটি পর্যালোচনা পোস্ট করেছেন।

কিন্তু শুরুতে সেই পোস্ট এত মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারেনি। যাইহোক, ২৮ এপ্রিল, অন্য একজন ব্যক্তি পর্যালোচনাটির একটি স্ক্রিনশট নিয়ে তার অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেছিলেন। বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়। হোটেল কর্তৃপক্ষ পোস্টের নিচে কমেন্ট রুমে বলেছে, এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

এর পরে, ঝাং আবার তার অভিজ্ঞতা চীনা সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েইবোতে শেয়ার করেছেন। প্রমাণ হিসেবে হোটেলের রসিদের ছবিও পোস্ট করেছেন তিনি। স্থানীয় মিডিয়া তার পোস্টটি তুলে নেয় এবং একটি সাক্ষাৎকারের জন্য দ্রুত তার সাথে যোগাযোগ করে।
৩০ এপ্রিল প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে ঝাং বলেন, ‘আমি খুব ভয় পেয়েছিলাম এবং এখনও ভয়ের কারণে ঠিকমতো ঘুমাতে পারিনি।’ তিনি জানান, হোটেল কক্ষে প্রবেশের পর কয়েক ঘণ্টা বিশ্রাম নিয়ে বিছানায় শুয়ে পড়েন তিনি।

তারপর সে উঠে বাইরে চলে যান এবং কয়েক ঘন্টা পরে ডিনারে যাওয়ার আগে চেঞ্জ করতে রুমে চলে যান। ঘরে ঢুকে আবার পঁচা গন্ধ পান। প্রথমে তিনি ভেবেছিলেন গন্ধটা হয়তো বেকারির নিচতলার বা হিটিং সিস্টেম থেকে আসছে।
এমনকি সে ভাবল এটা তার পায়ের গন্ধ কিনা। রাতের খাবার থেকে ফিরে আসার পরেও রুমে গন্ধ ছিল তাই সে তার রুম পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গভীর রাতে এক হোটেল কর্মী তাকে ফোন করে সিঁড়ি বেয়ে তার ছেড়ে যাওয়া কক্ষে যেতে বলেন।

সেখানে গিয়ে দেখেন পুলিশ তার বক্তব্য নেওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে। তার ডিএনএ নমুনাও সংগ্রহ করেছে পুলিশ। তিনি আরও বলেন, ‘পুলিশ আমাকে চিন্তা করতে নিষেধ করেছে। তারা আমাকে বলেছে যে তারা ইতিমধ্যে এই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহভাজন একজনকে গ্রেপ্তার করেছে।’

এ ব্যাপারে পুলিশ আর কোনো তথ্য দেয়নি। কিন্তু তারা একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। অন্য প্রদেশের লানঝো শহর থেকে একজন সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঝাং বলেছিলেন যে তিনি যে অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছেন তা প্রকাশ করতে চান না।

কিন্তু হোটেল কর্তৃপক্ষ পুরো ঘটনা অস্বীকার করে সোশ্যাল মিডিয়ায় তাকে দোষারোপ করায় তিনি সব সত্য নিয়ে এগিয়ে আসতে বাধ্য হন। ঝাং এর পরবর্তী পোস্ট ভাইরাল হয়ে যায়।

তিব্বতের হোটেলে বিছানার নিচে খুঁজে পাওয়া গেলো পঁচা লাশ

আপডেট সময় : ০১:৫৮:১৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ মে ২০২৩

নিজস্ব প্রতিনিধি:
গত ২১ এপ্রিল, তিব্বতের লাসার একটি হোটেলে তীব্র দুর্গন্ধের উৎস খুঁজতে গিয়ে বিছানার নিচে একটি পচনশীল লাশ পাওয়া যায়। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, ঝাং নামের এক ব্যক্তি চীন থেকে তিব্বতে গিয়েছিলেন। হোটেলে তার রুমে প্রবেশ করার সাথে সাথেই তীব্র দুর্গন্ধ পেল। কোথা থেকে গন্ধ আসছে বুঝতে পারছে না। গন্ধ উপেক্ষা করে বিছানায় শুয়ে পড়ল। তিন ঘণ্টা পর ঘুম ভাঙল। কিন্তু এখনও দুর্গন্ধ।
হোটেল কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করার পর তাকে আরেকটি রুম দেওয়া হয় এবং গন্ধের উৎস খুঁজতে গিয়ে কর্তৃপক্ষ বিছানার নিচে একটি পঁচা লাশ দেখতে পায়। পুলিশ জানায়, ঘটনার তদন্ত শুরু করার পর হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করা হয়েছে।

ঝাং যে হোটেলে ছিলেন তা হল গুজহাং সুহুয়া ইন। হোটেলটি তার উষ্ণ বাতি এবং কাঠের বারান্দার জন্য জনপ্রিয়। বিশেষ করে ফটোগ্রাফির জন্য। সোশ্যাল মিডিয়ায় হোটেল ভ্রমণের অনেক ছবি দেখা যায়। ঝাং তার হোটেলে থাকার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে অনলাইনে একটি পর্যালোচনা পোস্ট করেছেন।

কিন্তু শুরুতে সেই পোস্ট এত মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারেনি। যাইহোক, ২৮ এপ্রিল, অন্য একজন ব্যক্তি পর্যালোচনাটির একটি স্ক্রিনশট নিয়ে তার অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেছিলেন। বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়। হোটেল কর্তৃপক্ষ পোস্টের নিচে কমেন্ট রুমে বলেছে, এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

এর পরে, ঝাং আবার তার অভিজ্ঞতা চীনা সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েইবোতে শেয়ার করেছেন। প্রমাণ হিসেবে হোটেলের রসিদের ছবিও পোস্ট করেছেন তিনি। স্থানীয় মিডিয়া তার পোস্টটি তুলে নেয় এবং একটি সাক্ষাৎকারের জন্য দ্রুত তার সাথে যোগাযোগ করে।
৩০ এপ্রিল প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে ঝাং বলেন, ‘আমি খুব ভয় পেয়েছিলাম এবং এখনও ভয়ের কারণে ঠিকমতো ঘুমাতে পারিনি।’ তিনি জানান, হোটেল কক্ষে প্রবেশের পর কয়েক ঘণ্টা বিশ্রাম নিয়ে বিছানায় শুয়ে পড়েন তিনি।

তারপর সে উঠে বাইরে চলে যান এবং কয়েক ঘন্টা পরে ডিনারে যাওয়ার আগে চেঞ্জ করতে রুমে চলে যান। ঘরে ঢুকে আবার পঁচা গন্ধ পান। প্রথমে তিনি ভেবেছিলেন গন্ধটা হয়তো বেকারির নিচতলার বা হিটিং সিস্টেম থেকে আসছে।
এমনকি সে ভাবল এটা তার পায়ের গন্ধ কিনা। রাতের খাবার থেকে ফিরে আসার পরেও রুমে গন্ধ ছিল তাই সে তার রুম পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গভীর রাতে এক হোটেল কর্মী তাকে ফোন করে সিঁড়ি বেয়ে তার ছেড়ে যাওয়া কক্ষে যেতে বলেন।

সেখানে গিয়ে দেখেন পুলিশ তার বক্তব্য নেওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে। তার ডিএনএ নমুনাও সংগ্রহ করেছে পুলিশ। তিনি আরও বলেন, ‘পুলিশ আমাকে চিন্তা করতে নিষেধ করেছে। তারা আমাকে বলেছে যে তারা ইতিমধ্যে এই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহভাজন একজনকে গ্রেপ্তার করেছে।’

এ ব্যাপারে পুলিশ আর কোনো তথ্য দেয়নি। কিন্তু তারা একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। অন্য প্রদেশের লানঝো শহর থেকে একজন সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঝাং বলেছিলেন যে তিনি যে অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছেন তা প্রকাশ করতে চান না।

কিন্তু হোটেল কর্তৃপক্ষ পুরো ঘটনা অস্বীকার করে সোশ্যাল মিডিয়ায় তাকে দোষারোপ করায় তিনি সব সত্য নিয়ে এগিয়ে আসতে বাধ্য হন। ঝাং এর পরবর্তী পোস্ট ভাইরাল হয়ে যায়।