ঢাকা ০২:৪৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ট্রেনের ভাড়া বাড়ানো নিয়ে মন্ত্রী ও ডিজির মধ্যে সমন্বয়হীনতা

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৭:০৯:০২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মার্চ ২০২৪ ২৩ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি:

ট্রেনের ভাড়ায় পরিবর্তন আনছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্র। এবার দূরত্ব হিসেবে জনপ্রিয় এ যানবাহনটির ভাড়া বাড়াতে চলেছে সরকারি প্রতিষ্ঠানটি, যা আগামী ১ এপ্রিল থেকেই কার্যকর হবে। সেই সঙ্গে বিশেষ কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ট্রেনের কোনো কামরা ভাড়া নিতে চাইলে শ্রেণিভেদে বাড়তি ভাড়া দিতে হবে। এটাকে রিজার্ভেশন সার্ভিস চার্জ বলা হচ্ছে। রবিবার (১৭ মার্চ) রেলওয়ে সূত্র থেকে এ তথ্য জানা গেছে। এদিকে এদিনই এবিষয়ে ঠিক তার বিপরীত কথা গণমাধ্যমকে জানালেন রেলমন্ত্রী জিল্লুল হাকিম। তিনি বলেছেন, ঈদের আগে আগামী পহেলা এপ্রিল থেকে রেলওয়ের ভাড়া বাড়ানো হবে-এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে।

তিনি বলেন, ঈদের আগে কোনোভাবেই রেলের ভাড়া বাড়বে না। এমনকি নিকট ভবিষ্যতেও রেলের ভাড়া বাড়বে না।

মহাপরিচালক সরদার শাহাদাত আলীকে উদ্ধৃত করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, ট্রেনে রেয়াতি সুবিধা প্রত্যাহার করে ভাড়ার হার সমন্বয় করা হবে। দীর্ঘদিন রেলের ভাড়া বাড়ানো হয়নি। জ্বালানিসহ অন্যান্য যন্ত্রাংশের দাম বৃদ্ধির ফলে রেলের পরিচালন ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। আয় বাড়ানোর লক্ষ্যে এখন যে ছাড় দেওয়া হচ্ছে, তা আর না দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ বিষয়ে জিল্লুল হাকিম বলেন, তিনি (সরদার শাহাদাত আলী) কি সিদ্ধান্ত দেওয়ার মালিক না কি? আমি বলছি, এখন ভাড়া বাড়বে না। কখনও বাড়ার প্রয়োজন হলে আপনাদের (সাংবাদিকদের) সঙ্গে আলাপ করে পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে সাধারণ মানুষকে জানান দিয়ে তারপর আমরা চিন্তা করবো। এ নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বের কোনো কারণ নেই।

প্রসঙ্গত, শনিবার (১৬ মার্চ) দুপুরে রাজবাড়ীর পাংশায় রেলের জমি থেকে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ বিষয়ে রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, স্থানীয় প্রশাসন ও বাসিন্দাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন রেলপথমন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিম। সেখানে সম্প্রতি গণমাধ্যমে ট্রেনের ভাড়া বাড়ানো হবে বলে সংবাদ প্রকাশের প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে রেলপথমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘আপাতত ট্রেনের ভাড়া বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনা আমাদের নেই। বর্তমানে সেই ২০১৬ সালে নির্ধারণ করা ভাড়াতেই এখন পর্যন্ত চলছে। সবকিছুর দাম বেড়েছে। তেলের দাম বেড়েছে, বগির দাম বেড়েছে, ইঞ্জিনের দাম বেড়েছে, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বেড়েছে। কিন্তু ট্রেনের টিকিটের দাম বাড়েনি। যখন আমরা ট্রেনের টিকিটের ভাড়া বাড়াবো, তখন আগে থেকে আপনাদের (সাংবাদিকদের) জানিয়েই বাড়াবো।’ তার এমন মন্তব্যের পরেই রবিবার রেলওয়ে সূত্র ট্রেনের ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে।

উল্লেখ্য, নতুন ভাড়া ব্যবস্থায় ০-১০০ কিলোমিটারের জন্য ০ শতাংশ হারে, ১০১-২৫০ কিলোমিটারে ২০ শতাংশ হারে, ২৫১-৪০০ কিলোমিটারে ২৫ শতাংশ হারে এবং ৪০০ কিলোমিটারের বেশি দূরত্বের জন্য ৩০ শতাংশ হারে ভাড়া বাড়বে। এ ছাড়া অগ্রিম আবেদনের মাধ্যমে সংযুক্ত বাড়তি কোচ বা বাড়তি চাহিদার সময়ে সংযোজিত কোচের টিকিটে শোভন শ্রেণির ক্ষেত্রে ২০ শতাংশ, স্নিগ্ধা ও অন্যান্য উচ্চশ্রেণিতে ৩০ শতাংশ রিজার্ভেশন সার্ভিস চার্জ আরোপ করা হবে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে সূত্র।

ট্রেনের ভাড়া বাড়ানো নিয়ে মন্ত্রী ও ডিজির মধ্যে সমন্বয়হীনতা

আপডেট সময় : ০৭:০৯:০২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মার্চ ২০২৪

নিজস্ব প্রতিনিধি:

ট্রেনের ভাড়ায় পরিবর্তন আনছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্র। এবার দূরত্ব হিসেবে জনপ্রিয় এ যানবাহনটির ভাড়া বাড়াতে চলেছে সরকারি প্রতিষ্ঠানটি, যা আগামী ১ এপ্রিল থেকেই কার্যকর হবে। সেই সঙ্গে বিশেষ কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ট্রেনের কোনো কামরা ভাড়া নিতে চাইলে শ্রেণিভেদে বাড়তি ভাড়া দিতে হবে। এটাকে রিজার্ভেশন সার্ভিস চার্জ বলা হচ্ছে। রবিবার (১৭ মার্চ) রেলওয়ে সূত্র থেকে এ তথ্য জানা গেছে। এদিকে এদিনই এবিষয়ে ঠিক তার বিপরীত কথা গণমাধ্যমকে জানালেন রেলমন্ত্রী জিল্লুল হাকিম। তিনি বলেছেন, ঈদের আগে আগামী পহেলা এপ্রিল থেকে রেলওয়ের ভাড়া বাড়ানো হবে-এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে।

তিনি বলেন, ঈদের আগে কোনোভাবেই রেলের ভাড়া বাড়বে না। এমনকি নিকট ভবিষ্যতেও রেলের ভাড়া বাড়বে না।

মহাপরিচালক সরদার শাহাদাত আলীকে উদ্ধৃত করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, ট্রেনে রেয়াতি সুবিধা প্রত্যাহার করে ভাড়ার হার সমন্বয় করা হবে। দীর্ঘদিন রেলের ভাড়া বাড়ানো হয়নি। জ্বালানিসহ অন্যান্য যন্ত্রাংশের দাম বৃদ্ধির ফলে রেলের পরিচালন ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। আয় বাড়ানোর লক্ষ্যে এখন যে ছাড় দেওয়া হচ্ছে, তা আর না দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ বিষয়ে জিল্লুল হাকিম বলেন, তিনি (সরদার শাহাদাত আলী) কি সিদ্ধান্ত দেওয়ার মালিক না কি? আমি বলছি, এখন ভাড়া বাড়বে না। কখনও বাড়ার প্রয়োজন হলে আপনাদের (সাংবাদিকদের) সঙ্গে আলাপ করে পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে সাধারণ মানুষকে জানান দিয়ে তারপর আমরা চিন্তা করবো। এ নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বের কোনো কারণ নেই।

প্রসঙ্গত, শনিবার (১৬ মার্চ) দুপুরে রাজবাড়ীর পাংশায় রেলের জমি থেকে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ বিষয়ে রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, স্থানীয় প্রশাসন ও বাসিন্দাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন রেলপথমন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিম। সেখানে সম্প্রতি গণমাধ্যমে ট্রেনের ভাড়া বাড়ানো হবে বলে সংবাদ প্রকাশের প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে রেলপথমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘আপাতত ট্রেনের ভাড়া বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনা আমাদের নেই। বর্তমানে সেই ২০১৬ সালে নির্ধারণ করা ভাড়াতেই এখন পর্যন্ত চলছে। সবকিছুর দাম বেড়েছে। তেলের দাম বেড়েছে, বগির দাম বেড়েছে, ইঞ্জিনের দাম বেড়েছে, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বেড়েছে। কিন্তু ট্রেনের টিকিটের দাম বাড়েনি। যখন আমরা ট্রেনের টিকিটের ভাড়া বাড়াবো, তখন আগে থেকে আপনাদের (সাংবাদিকদের) জানিয়েই বাড়াবো।’ তার এমন মন্তব্যের পরেই রবিবার রেলওয়ে সূত্র ট্রেনের ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে।

উল্লেখ্য, নতুন ভাড়া ব্যবস্থায় ০-১০০ কিলোমিটারের জন্য ০ শতাংশ হারে, ১০১-২৫০ কিলোমিটারে ২০ শতাংশ হারে, ২৫১-৪০০ কিলোমিটারে ২৫ শতাংশ হারে এবং ৪০০ কিলোমিটারের বেশি দূরত্বের জন্য ৩০ শতাংশ হারে ভাড়া বাড়বে। এ ছাড়া অগ্রিম আবেদনের মাধ্যমে সংযুক্ত বাড়তি কোচ বা বাড়তি চাহিদার সময়ে সংযোজিত কোচের টিকিটে শোভন শ্রেণির ক্ষেত্রে ২০ শতাংশ, স্নিগ্ধা ও অন্যান্য উচ্চশ্রেণিতে ৩০ শতাংশ রিজার্ভেশন সার্ভিস চার্জ আরোপ করা হবে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে সূত্র।