ঢাকা ০২:৪২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জিম্মি জাহাজে বিমান বিধ্বংসী অস্ত্র, ফাঁকা গুলি ছুড়ে নিজেদের অবস্থানের জানাচ্ছে জলদস্যুরা

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০১:৩৬:০৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০২৪ ১৮ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি:

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নিজস্ব নৌবাহিনী এবং ভারতীয় নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ সোমালি জলদস্যুদের নিয়ন্ত্রণে থাকা বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহর গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছে। অন্যদিকে জলদস্যুরা ফাঁকা গুলি ছুড়ে নিজেদের অবস্থান জানাচ্ছে। সেই সাথে তারা জিম্মি জাহাজে বিমান বিধ্বংসী অস্ত্র বসিয়েছে।

শুক্রবার (২২ মার্চ) রাতে জিম্মি নাবিকের পরিবারের এক সদস্য গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, জাহাজে সুপেয় পানির সংকট থাকায় নাবিকদের পানি ব্যবহারে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। জাহাজে সার্বক্ষণিক পাহারায় ৩০ থেকে ৩৫ জন সশস্ত্র জলদস্যু নাবিকদের ওপর নজরদারি বাড়িয়েছে। বর্তমানে, নাবিকদের কেবিনে থাকতে দেওয়া হয় না। খাবারের কষ্টের পাশাপাশি সবাইকে একটি টয়লেট ব্যবহার করতে হচ্ছে।

দ্য ডেইলি সোমালিয়া ও ভারতীয় বিমান বাহিনীর এক্স অ্যাকাউন্ট থেকে জলদস্যুদের বিমান বিধ্বংসী বন্দুকের ছবি প্রকাশ করা হয়েছে।

একটি ছবিতে দেখা যায়, ইইউ নৌ বাহিনীর দুই সদস্য যুদ্ধজাহাজ থেকে এমভি আবদুল্লাহ জাহাজের দিকে তাকিয়ে আছেন। ইইউ নৌবাহিনী যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করেছে কিন্তু কোনো অভিযানের খবর দেয়নি।

ইইউ নেভাল ফোর্স এক্স-এ একটি ভিডিও চিত্র এবং তিনটি স্থির চিত্র প্রকাশিত হয়েছে। দেখা যায়, ইইউ নেভাল ফোর্সের অপারেশন আটলান্টার মোতায়েন করা যুদ্ধজাহাজটি বাংলাদেশের জিম্মি জাহাজের কয়েক নটিক্যাল মাইল দূরে অবস্থান করছে। যুদ্ধজাহাজ থেকে একটি হেলিকপ্টার জিম্মি বাংলাদেশি জাহাজের ওপর দিয়ে উড়ে যেতে দেখা যায়।

জিম্মি জাহাজে বিমান বিধ্বংসী অস্ত্র, ফাঁকা গুলি ছুড়ে নিজেদের অবস্থানের জানাচ্ছে জলদস্যুরা

আপডেট সময় : ০১:৩৬:০৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০২৪

নিজস্ব প্রতিনিধি:

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নিজস্ব নৌবাহিনী এবং ভারতীয় নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ সোমালি জলদস্যুদের নিয়ন্ত্রণে থাকা বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহর গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছে। অন্যদিকে জলদস্যুরা ফাঁকা গুলি ছুড়ে নিজেদের অবস্থান জানাচ্ছে। সেই সাথে তারা জিম্মি জাহাজে বিমান বিধ্বংসী অস্ত্র বসিয়েছে।

শুক্রবার (২২ মার্চ) রাতে জিম্মি নাবিকের পরিবারের এক সদস্য গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, জাহাজে সুপেয় পানির সংকট থাকায় নাবিকদের পানি ব্যবহারে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। জাহাজে সার্বক্ষণিক পাহারায় ৩০ থেকে ৩৫ জন সশস্ত্র জলদস্যু নাবিকদের ওপর নজরদারি বাড়িয়েছে। বর্তমানে, নাবিকদের কেবিনে থাকতে দেওয়া হয় না। খাবারের কষ্টের পাশাপাশি সবাইকে একটি টয়লেট ব্যবহার করতে হচ্ছে।

দ্য ডেইলি সোমালিয়া ও ভারতীয় বিমান বাহিনীর এক্স অ্যাকাউন্ট থেকে জলদস্যুদের বিমান বিধ্বংসী বন্দুকের ছবি প্রকাশ করা হয়েছে।

একটি ছবিতে দেখা যায়, ইইউ নৌ বাহিনীর দুই সদস্য যুদ্ধজাহাজ থেকে এমভি আবদুল্লাহ জাহাজের দিকে তাকিয়ে আছেন। ইইউ নৌবাহিনী যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করেছে কিন্তু কোনো অভিযানের খবর দেয়নি।

ইইউ নেভাল ফোর্স এক্স-এ একটি ভিডিও চিত্র এবং তিনটি স্থির চিত্র প্রকাশিত হয়েছে। দেখা যায়, ইইউ নেভাল ফোর্সের অপারেশন আটলান্টার মোতায়েন করা যুদ্ধজাহাজটি বাংলাদেশের জিম্মি জাহাজের কয়েক নটিক্যাল মাইল দূরে অবস্থান করছে। যুদ্ধজাহাজ থেকে একটি হেলিকপ্টার জিম্মি বাংলাদেশি জাহাজের ওপর দিয়ে উড়ে যেতে দেখা যায়।