ঢাকা ০৬:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চায়ের সঙ্গেই ধূমপান করে কঠিন রোগ ডাকছেন না তো?

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৫:৫৭:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৩৯ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি :

সকালে ঘুম থেকে ওঠে বিছানায় বসেই গরম চায়ে চুমুক দেন অনেকেই। আবার অনেকেই অফিসে কাজের ফাঁকে কিংবা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা সবখানে চা-কফি না থাকলে যেন চলেই না।

তবে প্রাকৃতিক বিভিন্ন ধরনের চায়ের স্বাস্থ্য উপকারিতা অনেক। কিন্তু গরম চা পান করার সঙ্গে সঙ্গে অনেকেই ধূমপান করেন, যা মারাত্মক রোগের কারণ হতে পারে।

আমরা সবাই জানি ধূমপান ক্যান্সার সৃষ্টি করে। কিন্তু ধূমপায়ীরা এ বিষয়ে সচেতন নন। একই সঙ্গে গরম চা ও সিগারেটের যুগলবন্দি স্বাস্থ্যঝুঁকি দ্বিগুণ বাড়িয়ে তুলতে পারে বলেই জানাচ্ছে এক গবেষণা।

অ্যানালস অফ ইন্টারনাল মেডিসিন মেডিকেল জার্নালে একটি চীনা গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। গবেষণায় বলা হয়েছে যে যারা নিয়মিত ধূমপান করেন এবং অ্যালকোহল পান করেন তাদের মধ্যে গরম চা পান করা খাদ্যনালীর ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

গবেষকরা প্রায় ৯ বছর ধরে ৩০-৭৯ বছর বয়সী ৪৫৬ হাজার ১৫৫ অংশগ্রহণকারীদের উপর গবেষণাটি পরিচালনা করেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে অত্যধিক গরম চা, ভারী অ্যালকোহল সেবনের সাথে মিলিত, খাদ্যনালী ক্যান্সারের ঝুঁকি পাঁচগুণ বাড়িয়ে দিতে পারে।

চীনের ন্যাশনাল ন্যাচারাল সায়েন্স ফাউন্ডেশনের ড. ক্যানকিং ইউ-এর নেতৃত্বের দল দেখেছে যে উচ্চ-তাপমাত্রার চা পান করার পাশাপাশি অ্যালকোহল বা ধূমপান খাওয়া খাদ্যনালীর ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায়।

অন্যদিকে ম্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির প্রফেসর অ্যান্ড্রু শ্যারকস বলেন, ‘আমরা চীনের তুলনায় পশ্চিমে কম তাপমাত্রায় চা পান করি। যা খাদ্যনালীর জন্য কম ক্ষতিকর।

যদিও গবেষণাটি চীনা জনসংখ্যার জন্য প্রাসঙ্গিক। তবে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষ চীনের তুলনায় একটু কম গরম পানীয় পানেই অভ্যস্ত। যা তুলনামূলকভাবে কম ক্ষতিকর।

তামাক এবং অ্যালকোহল উভয়ই ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বাড়াতে যথেষ্ট। ক্যান্সারের মতো মারণ রোগ থেকে নিজেকে রক্ষা করতে ধূমপান ও মদ্যপানের অভ্যাস থেকে দূরে থাকা জরুরি। এই অভ্যাসগুলো গরম চায়ের সঙ্গে মিলিয়ে নিলে সমস্যা আরও বাড়ে।

চায়ের সঙ্গেই ধূমপান করে কঠিন রোগ ডাকছেন না তো?

আপডেট সময় : ০৫:৫৭:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

নিজস্ব প্রতিনিধি :

সকালে ঘুম থেকে ওঠে বিছানায় বসেই গরম চায়ে চুমুক দেন অনেকেই। আবার অনেকেই অফিসে কাজের ফাঁকে কিংবা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা সবখানে চা-কফি না থাকলে যেন চলেই না।

তবে প্রাকৃতিক বিভিন্ন ধরনের চায়ের স্বাস্থ্য উপকারিতা অনেক। কিন্তু গরম চা পান করার সঙ্গে সঙ্গে অনেকেই ধূমপান করেন, যা মারাত্মক রোগের কারণ হতে পারে।

আমরা সবাই জানি ধূমপান ক্যান্সার সৃষ্টি করে। কিন্তু ধূমপায়ীরা এ বিষয়ে সচেতন নন। একই সঙ্গে গরম চা ও সিগারেটের যুগলবন্দি স্বাস্থ্যঝুঁকি দ্বিগুণ বাড়িয়ে তুলতে পারে বলেই জানাচ্ছে এক গবেষণা।

অ্যানালস অফ ইন্টারনাল মেডিসিন মেডিকেল জার্নালে একটি চীনা গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। গবেষণায় বলা হয়েছে যে যারা নিয়মিত ধূমপান করেন এবং অ্যালকোহল পান করেন তাদের মধ্যে গরম চা পান করা খাদ্যনালীর ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

গবেষকরা প্রায় ৯ বছর ধরে ৩০-৭৯ বছর বয়সী ৪৫৬ হাজার ১৫৫ অংশগ্রহণকারীদের উপর গবেষণাটি পরিচালনা করেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে অত্যধিক গরম চা, ভারী অ্যালকোহল সেবনের সাথে মিলিত, খাদ্যনালী ক্যান্সারের ঝুঁকি পাঁচগুণ বাড়িয়ে দিতে পারে।

চীনের ন্যাশনাল ন্যাচারাল সায়েন্স ফাউন্ডেশনের ড. ক্যানকিং ইউ-এর নেতৃত্বের দল দেখেছে যে উচ্চ-তাপমাত্রার চা পান করার পাশাপাশি অ্যালকোহল বা ধূমপান খাওয়া খাদ্যনালীর ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায়।

অন্যদিকে ম্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির প্রফেসর অ্যান্ড্রু শ্যারকস বলেন, ‘আমরা চীনের তুলনায় পশ্চিমে কম তাপমাত্রায় চা পান করি। যা খাদ্যনালীর জন্য কম ক্ষতিকর।

যদিও গবেষণাটি চীনা জনসংখ্যার জন্য প্রাসঙ্গিক। তবে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষ চীনের তুলনায় একটু কম গরম পানীয় পানেই অভ্যস্ত। যা তুলনামূলকভাবে কম ক্ষতিকর।

তামাক এবং অ্যালকোহল উভয়ই ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বাড়াতে যথেষ্ট। ক্যান্সারের মতো মারণ রোগ থেকে নিজেকে রক্ষা করতে ধূমপান ও মদ্যপানের অভ্যাস থেকে দূরে থাকা জরুরি। এই অভ্যাসগুলো গরম চায়ের সঙ্গে মিলিয়ে নিলে সমস্যা আরও বাড়ে।