ঢাকা ০৭:১৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাজায় ৮ হাজার শিশু তীব্র অপুষ্টিতে ভুগছে

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০২:২৭:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪ ৩৯ বার পঠিত

গাজার পরিস্থিতি দিন দিন আরও নাজুক হয়ে উঠছে। খাদ্য ও পানির অভাবে দিশেহারা হয়ে পড়ছে নিরীহ ফিলিস্তিনিরা। এমনকি শিশুদের মুখে তুলে দেওয়ার মতো খাবারের জোগানও দেওয়া যাচ্ছে না।

গাজার হামাস-নিয়ন্ত্রিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গাজায় ২৫০ দিনের যুদ্ধে ১৫,৬৯৪ শিশু নিহত এবং ১৭ হাজার শিশু তাদের বাবা-মাকে হারিয়ে এতিম হয়ে গেছে।

এদিকে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইসাস গাজায় খাদ্য সংকটের বিপর্যয় সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলে পাঁচ বছরের কম বয়সী আট হাজার শিশু মারাত্মক অপুষ্টিতে ভুগছে বলে জানা গেছে।

গাজা উপত্যকার উত্তরাঞ্চলে কর্মরত একজন সরকারী কর্মকর্তা আল জাজিরাকে বলেছেন যে বেশিরভাগ খাদ্যপণ্য ফুরিয়ে যাওয়ায় সেখানে তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে।

জাতিসংঘ সমর্থিত একটি স্বাধীন তদন্ত কমিশন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, গাজাযুদ্ধের প্রথম দিকেই ইসরায়েল ও হামাস যুদ্ধাপরাধ করেছে। এতে বলা হয়েছে, শুধু যুদ্ধাপরাধ নয়, মানবতাবিরোধী অপরাধও করেছে ইসরায়েল। কারণ তাদের হামলায় বেসামরিক অসংখ্য মানুষ নিহত হয়েছেন।

দুটি প্রতিবেদন গাজা যুদ্ধের পরিস্থিতিকে তুলে ধরা হয়েছে, একটিতে ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের অভ্যন্তরে হামাসের হামলার বিষয়ে কথা বলা হয়েছে। অন্যটিতে গাজায় ইসরায়েলি অভিযানের তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

তদন্ত কমিশন আরও বলেছে, ইসরাইল তাদের কাজে বাধা দিয়েছে। ইসরায়েল ও গাজায় প্রবেশের ক্ষেত্রেও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে তেল আবিব প্রশাসন।

গাজায় ৮ হাজার শিশু তীব্র অপুষ্টিতে ভুগছে

আপডেট সময় : ০২:২৭:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

গাজার পরিস্থিতি দিন দিন আরও নাজুক হয়ে উঠছে। খাদ্য ও পানির অভাবে দিশেহারা হয়ে পড়ছে নিরীহ ফিলিস্তিনিরা। এমনকি শিশুদের মুখে তুলে দেওয়ার মতো খাবারের জোগানও দেওয়া যাচ্ছে না।

গাজার হামাস-নিয়ন্ত্রিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গাজায় ২৫০ দিনের যুদ্ধে ১৫,৬৯৪ শিশু নিহত এবং ১৭ হাজার শিশু তাদের বাবা-মাকে হারিয়ে এতিম হয়ে গেছে।

এদিকে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইসাস গাজায় খাদ্য সংকটের বিপর্যয় সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলে পাঁচ বছরের কম বয়সী আট হাজার শিশু মারাত্মক অপুষ্টিতে ভুগছে বলে জানা গেছে।

গাজা উপত্যকার উত্তরাঞ্চলে কর্মরত একজন সরকারী কর্মকর্তা আল জাজিরাকে বলেছেন যে বেশিরভাগ খাদ্যপণ্য ফুরিয়ে যাওয়ায় সেখানে তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে।

জাতিসংঘ সমর্থিত একটি স্বাধীন তদন্ত কমিশন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, গাজাযুদ্ধের প্রথম দিকেই ইসরায়েল ও হামাস যুদ্ধাপরাধ করেছে। এতে বলা হয়েছে, শুধু যুদ্ধাপরাধ নয়, মানবতাবিরোধী অপরাধও করেছে ইসরায়েল। কারণ তাদের হামলায় বেসামরিক অসংখ্য মানুষ নিহত হয়েছেন।

দুটি প্রতিবেদন গাজা যুদ্ধের পরিস্থিতিকে তুলে ধরা হয়েছে, একটিতে ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের অভ্যন্তরে হামাসের হামলার বিষয়ে কথা বলা হয়েছে। অন্যটিতে গাজায় ইসরায়েলি অভিযানের তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

তদন্ত কমিশন আরও বলেছে, ইসরাইল তাদের কাজে বাধা দিয়েছে। ইসরায়েল ও গাজায় প্রবেশের ক্ষেত্রেও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে তেল আবিব প্রশাসন।