ঢাকা ০৬:৩৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এনটিইউ-জাবি যৌথ উদ্যোগে ডিমেনশিয়ার উপর কর্মশালা অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৭:০০:৫১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ এপ্রিল ২০২৪ ৩৬ বার পঠিত
ইউসূফ জামিল, জাবি প্রতিনিধি :
যুক্তরাজ্যের নটিংহাম ট্রেন্ট ইউনিভার্সিটি ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ইনস্টিটিউট অফ ইনফরমেশন এন্ড টেকনোলজি’র (আইআইটি) অ্যাপ্লাইড ইনটেলিজেন্স অ্যান্ড ইনফরমেটিক্স ল্যাবের যৌথ উদ্যোগে স্মৃতিভ্রষ্টতা বা ডিমেনশিয়া রোগ নির্ণয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারে প্রাথমিক পর্যায়ে এ রোগ নির্নয় বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
শুক্রবার (০৫ এপ্রিল) রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। দিনব্যাপী এ কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্স এর পরিচালক  অধ্যাপক ড. দ্বীন মোহাম্মদ । এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ৷ বিভিন্ন পেশার অর্ধশতাধিক মানুষ অংশ নেন।
যুক্তরাজ্যের নটিংহাম টুয়েন্টি ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক ডা.মুফতি মাহমুদ এর সঞ্চালনায় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের মধ্যে কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোহাম্মদ মোজাম্মেল হোসেন খান, ল্যাবএইড ক্যান্সার হাসপাতালের কার্ডিওলজিস্ট ডা. আব্দুল মাহিদ খান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় আইআইটি বিভাগের অধ্যাপক ড.শামীম কায়সার এবং আস্থা ফাউন্ডেশনের শিল্পী আক্তার।
বর্তমান বিশ্বে কোভিড-১৯ মহামারীর মতো যেসব বড় ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যা রয়েছে, তার একটি ডিমেনশিয়া। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, বেশিরভাগ দেশ ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিভ্রষ্ট হওয়ার ক্রমবর্ধমান সমস্যা মোকাবেলায় ব্যর্থ হচ্ছে। সংস্থাটির নতুন এক রিপোর্টে বলা হয়েছে- সারা বিশ্বের মাত্র এক চতুর্থাংশ দেশের জাতীয় নীতিমালা রয়েছে ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তি ও তার পরিবারকে সাহায্য দেওয়ার ব্যাপারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেবে বর্তমানে সাড়ে পাঁচ কোটিরও বেশি মানুষ ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত এবং এই শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে মধ্যে এই সংখ্যা তিনগুন বৃদ্ধি পাবে।
কর্মশালার ডিমেনশিয়া রোগ-বিশেষজ্ঞরা বলেন, মস্তিস্কের অনেক অসুখের একটি উপসর্গ এই ডিমেনশিয়া। ‌এর স্বাভাবিক ও সাধারণ একটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে স্মৃতিভ্রষ্ট হওয়া বা ভুলে যাওয়া। কেউ ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত হলে তার পক্ষে অতীতের চেয়ে সাম্প্রতিক ঘটনা মনে রাখা অনেক বেশি কঠিন। এটা মূলত বয়স্ক মানুষের রোগ। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই স্মৃতির ব্যাপারে সমস্যা দেখা দেয়। সহজ করে বললে এটি হচ্ছে ভুলে যাওয়া রোগ। এর সাথে অন্যান্য সমস্যাও হয়। যেমন নিজের কাজগুলো নিজে ঠিক মতো করতে না পারা,কারো ক্ষেত্রে হাঁটা চলারও সমস্যা হয়।
ডিমেনশিয়ার উপসর্গের সম্পর্কে বিশেষজ্ঞরা বলেন, ডিমেনশিয়ার যেসব উপসর্গ আছে তার মধ্যে রয়েছে আচরণের পরিবর্তন, মেজাজ ও ব্যক্তিত্ব, পরিচিত জায়গাতেও হারিয়ে যাওয়া অথবা কারো সঙ্গে আলাপ করার সময় সঠিক শব্দটি খুঁজে না পাওয়া। এটা এমন এক পর্যায়ে গিয়েও পৌঁছাতে পারে যে তিনি খেয়েছেন কীনা সেটাও তিনি মনে করতে পারেন না। চাবি কোথায় রেখেছেন, চেকে সই করেছেন কীনা- এসব তারা সহজেই ভুলে যান। এমনকি তারা কথাও গুছিয়ে বলতে পারেন না। কথা বলার সময় কোন শব্দের পর কোন শব্দ ব্যবহার করবেন কিম্বা একটা বাক্যের পর পরের বাক্যে কী বলবেন সেসব তারা মেলাতে পারেন না।
কর্মশালায় ড. মুফতি মাহমুদ বলেন, এই কর্মশালাটি ডিমেনশিয়া চিকিৎসায় বহুবিষয়ক সহযোগিতা এবং উদ্ভাবনের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম প্রদান করেছে। আমরা ব্যাখ্যাযোগ্য কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সমাধান ব্যবহার করে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবা পেশাদার এবং যত্নশীলদের ক্ষমতায়ন করার লক্ষ্য রাখি।
সেশনটি ডিমেনশিয়া টুল ডিজাইন প্রক্রিয়ার বিভিন্ন দিক সম্পর্কে ইন্টারেক্টিভ কথোপকথনকে উৎসাহিত করেছিল। অংশগ্রহণকারীরা ডিমেনশিয়া শনাক্তকরণ এবং পরিচালনার অনন্য সমস্যাগুলির উত্তর খুঁজে পেতে সহযোগিতা করেছেন।
এছাড়াও প্রাথমিক পর্যায়ে ডিমেনশিয়া নির্ণয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা  ব্যবহারে জন্য কর্মশালায়  অংশগ্রহনকারী বিশেষজ্ঞরা মতামত দেন।

এনটিইউ-জাবি যৌথ উদ্যোগে ডিমেনশিয়ার উপর কর্মশালা অনুষ্ঠিত

আপডেট সময় : ০৭:০০:৫১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ এপ্রিল ২০২৪
ইউসূফ জামিল, জাবি প্রতিনিধি :
যুক্তরাজ্যের নটিংহাম ট্রেন্ট ইউনিভার্সিটি ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ইনস্টিটিউট অফ ইনফরমেশন এন্ড টেকনোলজি’র (আইআইটি) অ্যাপ্লাইড ইনটেলিজেন্স অ্যান্ড ইনফরমেটিক্স ল্যাবের যৌথ উদ্যোগে স্মৃতিভ্রষ্টতা বা ডিমেনশিয়া রোগ নির্ণয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারে প্রাথমিক পর্যায়ে এ রোগ নির্নয় বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
শুক্রবার (০৫ এপ্রিল) রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। দিনব্যাপী এ কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্স এর পরিচালক  অধ্যাপক ড. দ্বীন মোহাম্মদ । এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ৷ বিভিন্ন পেশার অর্ধশতাধিক মানুষ অংশ নেন।
যুক্তরাজ্যের নটিংহাম টুয়েন্টি ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক ডা.মুফতি মাহমুদ এর সঞ্চালনায় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের মধ্যে কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোহাম্মদ মোজাম্মেল হোসেন খান, ল্যাবএইড ক্যান্সার হাসপাতালের কার্ডিওলজিস্ট ডা. আব্দুল মাহিদ খান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় আইআইটি বিভাগের অধ্যাপক ড.শামীম কায়সার এবং আস্থা ফাউন্ডেশনের শিল্পী আক্তার।
বর্তমান বিশ্বে কোভিড-১৯ মহামারীর মতো যেসব বড় ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যা রয়েছে, তার একটি ডিমেনশিয়া। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, বেশিরভাগ দেশ ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিভ্রষ্ট হওয়ার ক্রমবর্ধমান সমস্যা মোকাবেলায় ব্যর্থ হচ্ছে। সংস্থাটির নতুন এক রিপোর্টে বলা হয়েছে- সারা বিশ্বের মাত্র এক চতুর্থাংশ দেশের জাতীয় নীতিমালা রয়েছে ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তি ও তার পরিবারকে সাহায্য দেওয়ার ব্যাপারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেবে বর্তমানে সাড়ে পাঁচ কোটিরও বেশি মানুষ ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত এবং এই শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে মধ্যে এই সংখ্যা তিনগুন বৃদ্ধি পাবে।
কর্মশালার ডিমেনশিয়া রোগ-বিশেষজ্ঞরা বলেন, মস্তিস্কের অনেক অসুখের একটি উপসর্গ এই ডিমেনশিয়া। ‌এর স্বাভাবিক ও সাধারণ একটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে স্মৃতিভ্রষ্ট হওয়া বা ভুলে যাওয়া। কেউ ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত হলে তার পক্ষে অতীতের চেয়ে সাম্প্রতিক ঘটনা মনে রাখা অনেক বেশি কঠিন। এটা মূলত বয়স্ক মানুষের রোগ। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই স্মৃতির ব্যাপারে সমস্যা দেখা দেয়। সহজ করে বললে এটি হচ্ছে ভুলে যাওয়া রোগ। এর সাথে অন্যান্য সমস্যাও হয়। যেমন নিজের কাজগুলো নিজে ঠিক মতো করতে না পারা,কারো ক্ষেত্রে হাঁটা চলারও সমস্যা হয়।
ডিমেনশিয়ার উপসর্গের সম্পর্কে বিশেষজ্ঞরা বলেন, ডিমেনশিয়ার যেসব উপসর্গ আছে তার মধ্যে রয়েছে আচরণের পরিবর্তন, মেজাজ ও ব্যক্তিত্ব, পরিচিত জায়গাতেও হারিয়ে যাওয়া অথবা কারো সঙ্গে আলাপ করার সময় সঠিক শব্দটি খুঁজে না পাওয়া। এটা এমন এক পর্যায়ে গিয়েও পৌঁছাতে পারে যে তিনি খেয়েছেন কীনা সেটাও তিনি মনে করতে পারেন না। চাবি কোথায় রেখেছেন, চেকে সই করেছেন কীনা- এসব তারা সহজেই ভুলে যান। এমনকি তারা কথাও গুছিয়ে বলতে পারেন না। কথা বলার সময় কোন শব্দের পর কোন শব্দ ব্যবহার করবেন কিম্বা একটা বাক্যের পর পরের বাক্যে কী বলবেন সেসব তারা মেলাতে পারেন না।
কর্মশালায় ড. মুফতি মাহমুদ বলেন, এই কর্মশালাটি ডিমেনশিয়া চিকিৎসায় বহুবিষয়ক সহযোগিতা এবং উদ্ভাবনের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম প্রদান করেছে। আমরা ব্যাখ্যাযোগ্য কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সমাধান ব্যবহার করে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবা পেশাদার এবং যত্নশীলদের ক্ষমতায়ন করার লক্ষ্য রাখি।
সেশনটি ডিমেনশিয়া টুল ডিজাইন প্রক্রিয়ার বিভিন্ন দিক সম্পর্কে ইন্টারেক্টিভ কথোপকথনকে উৎসাহিত করেছিল। অংশগ্রহণকারীরা ডিমেনশিয়া শনাক্তকরণ এবং পরিচালনার অনন্য সমস্যাগুলির উত্তর খুঁজে পেতে সহযোগিতা করেছেন।
এছাড়াও প্রাথমিক পর্যায়ে ডিমেনশিয়া নির্ণয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা  ব্যবহারে জন্য কর্মশালায়  অংশগ্রহনকারী বিশেষজ্ঞরা মতামত দেন।