ঢাকা ১১:১৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আড়াই বছর পর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কাজ আবারো শুরু

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৪:৩৮:৫৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩ ১৩ বার পঠিত

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ
আড়াই বছর বন্ধ থাকার পর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কাজ আবার শুরু হয়েছে। রোববার বেলা ১১টার দিকে বিজিবির ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরাইল রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম কসবায় প্রকল্প পরিদর্শনের পর কাজ শুরু করা হয়। জানা যায়, গত ২০১৬ সালে ১ নভেম্বর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। কাজ শুরু হওয়ার পর ২০২০ সালের ৯ সেপ্টেম্বর কসবা ও সালদা নদী স্টেশন দুটির অবস্থান বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে হওয়ার কারণে বিএসএফের বাধায় কাজটিতে আপত্তি উঠে। এতে প্রকল্পের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। পরে বিভিন্ন পর্যায়ের অব্যাহত কূটনৈতিক তৎপরতা এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) বিএসএফের সঙ্গে কার্যকর যোগাযোগ শুরু করে। অবশেষে আড়াই বছর পর বিএসএফের বাধায় দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা বহুল প্রতীক্ষিত আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কসবা ও সালদা নদী অংশের কাজ পুনরায় শুরু হয়েছে। সরাইল রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম জানান, প্রকল্পটির অসম্পূর্ণ কাজ পুনরায় শুরু করার লক্ষ্যে বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলনে এবং রিজিয়ন, সেক্টর, ব্যাটালিয়ন, কোম্পানি ও বিওপি কমান্ডার পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট বিএসএফ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিজিবি সার্বক্ষণিক যোগাযোগ ও কার্যকর বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে।বিশেষ করে গত বছর ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ের সীমান্ত সম্মেলনে বন্ধ থাকা আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের বিষয়টি জোরালো ভাবে উত্থাপন করা হয়। একই বছর সেপ্টেম্বর মাসে ভারতের নয়াদিল্লীতে বাংলাদেশ-ভারত প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে প্রকল্পটির বিষয়ে একটি ফলপ্রসূ আলোচনা হয়। এছাড়াও অতি সম্প্রতি বাংলাদেশ ও ভারত উভয় রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মধ্যেও প্রকল্পটির অনিষ্পন্ন কাজ শুরু করার ব্যাপারে ফলপ্রসু আলোচনা হয়। তিনি জানান, গত ১ মার্চ বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল এ কে এম নাজমুল হাসান আখাউড়া আইসিপি, আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কসবা ও সালদানদী স্টেশন এলাকা পরিদর্শন করেন এবং প্রকল্পটির বন্ধ থাকা কাজ খুব দ্রুত শুরু হবে বলে তিনি দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এরই ধারাবাহিকতায় দেশের অন্যতম জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ এই প্রকল্পের কাজটি পুনরায় শুরু হয়েছে। আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত হলে এটি দেশের জাতীয় অর্থনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।এদিকে প্রকল্প পরিচালক সুবক্ত গীন জানান, রোববার নির্মাণ কাজ শুরুর মধ্য দিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ ডুয়েলগেজ প্রকল্পের সব ধরনের বাধা দূর হয়েছে। চলতি বছরই কাজটি শেষ হবে। এতে ট্রেনের সংখ্যা বাড়বে, ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে সময়ও কমে আসবে।
এ সময় বিজিবি-৬০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক আশিক হাসান উল্লাহ, তমা গ্রুপের ট্রেগ ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মহিউদ্দিনসহ বিজিবি ও রেলওয়ের কর্মকর্তা এবং সংশ্লিষ্ট লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

 

আড়াই বছর পর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কাজ আবারো শুরু

আপডেট সময় : ০৪:৩৮:৫৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ
আড়াই বছর বন্ধ থাকার পর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কাজ আবার শুরু হয়েছে। রোববার বেলা ১১টার দিকে বিজিবির ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরাইল রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম কসবায় প্রকল্প পরিদর্শনের পর কাজ শুরু করা হয়। জানা যায়, গত ২০১৬ সালে ১ নভেম্বর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। কাজ শুরু হওয়ার পর ২০২০ সালের ৯ সেপ্টেম্বর কসবা ও সালদা নদী স্টেশন দুটির অবস্থান বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে হওয়ার কারণে বিএসএফের বাধায় কাজটিতে আপত্তি উঠে। এতে প্রকল্পের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। পরে বিভিন্ন পর্যায়ের অব্যাহত কূটনৈতিক তৎপরতা এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) বিএসএফের সঙ্গে কার্যকর যোগাযোগ শুরু করে। অবশেষে আড়াই বছর পর বিএসএফের বাধায় দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা বহুল প্রতীক্ষিত আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কসবা ও সালদা নদী অংশের কাজ পুনরায় শুরু হয়েছে। সরাইল রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম জানান, প্রকল্পটির অসম্পূর্ণ কাজ পুনরায় শুরু করার লক্ষ্যে বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলনে এবং রিজিয়ন, সেক্টর, ব্যাটালিয়ন, কোম্পানি ও বিওপি কমান্ডার পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট বিএসএফ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিজিবি সার্বক্ষণিক যোগাযোগ ও কার্যকর বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে।বিশেষ করে গত বছর ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ের সীমান্ত সম্মেলনে বন্ধ থাকা আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের বিষয়টি জোরালো ভাবে উত্থাপন করা হয়। একই বছর সেপ্টেম্বর মাসে ভারতের নয়াদিল্লীতে বাংলাদেশ-ভারত প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে প্রকল্পটির বিষয়ে একটি ফলপ্রসূ আলোচনা হয়। এছাড়াও অতি সম্প্রতি বাংলাদেশ ও ভারত উভয় রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মধ্যেও প্রকল্পটির অনিষ্পন্ন কাজ শুরু করার ব্যাপারে ফলপ্রসু আলোচনা হয়। তিনি জানান, গত ১ মার্চ বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল এ কে এম নাজমুল হাসান আখাউড়া আইসিপি, আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কসবা ও সালদানদী স্টেশন এলাকা পরিদর্শন করেন এবং প্রকল্পটির বন্ধ থাকা কাজ খুব দ্রুত শুরু হবে বলে তিনি দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এরই ধারাবাহিকতায় দেশের অন্যতম জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ এই প্রকল্পের কাজটি পুনরায় শুরু হয়েছে। আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত হলে এটি দেশের জাতীয় অর্থনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।এদিকে প্রকল্প পরিচালক সুবক্ত গীন জানান, রোববার নির্মাণ কাজ শুরুর মধ্য দিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ ডুয়েলগেজ প্রকল্পের সব ধরনের বাধা দূর হয়েছে। চলতি বছরই কাজটি শেষ হবে। এতে ট্রেনের সংখ্যা বাড়বে, ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে সময়ও কমে আসবে।
এ সময় বিজিবি-৬০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক আশিক হাসান উল্লাহ, তমা গ্রুপের ট্রেগ ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মহিউদ্দিনসহ বিজিবি ও রেলওয়ের কর্মকর্তা এবং সংশ্লিষ্ট লোকজন উপস্থিত ছিলেন।