ঢাকা ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অনুপ্রবেশকারী ১১ রোহিঙ্গাকে রিমান্ড শেষে আদালতে প্রেরণ

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৯:২৪:০৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ২৫ বার পঠিত

মোহাম্মদ হাসান, কক্সবাজার প্রতিনিধি :

অস্ত্রসহ মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী ২৩ রোহিঙ্গার মধ্যে ১১ জনকে ৩ দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে অপর ১১ জনকে ৩ দিনের রিমান্ডের জন্য পুলিশ হেফাজতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ৩ দিনের রিমান্ড শেষ হওয়া ১১ রোহিঙ্গাকে কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শ্রীজ্ঞান তঞ্চঙ্গ্যার আদালতে উপস্থাপন করা হলে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন৷

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উখিয়ার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নাছির উদ্দিন মজুমদার।
তিনি বলেন, প্রথম দফায় নিয়ে যাওয়া ১১ রোহিঙ্গা ৩ দিনের রিমান্ডে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। এদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় অপর ১১ রোহিঙ্গাকে সোমবার দুপুরে কারাগার থেকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এদের ৩ দিনের রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। একইসঙ্গে প্রথম দফায় ১১ জনের দেয়া তথ্যের সাথে যাচাই-বাছাই করা হবে।
প্রথম দফায় ১৬ ফেব্রুয়ারি দুপুরে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে এই ১১ জনকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। আদালত ২৩ রোহিঙ্গার মধ্যে অসুস্থ একজন ছাড়া অপর ২২ জনের ৩ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছিল।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের সংঘাতের মধ্যে পালিয়ে আসা বিজিপি সদস্যের পাশাপাশি অস্ত্রধারী ২৩ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করেছিল। এদের ৯ ফেব্রুয়ারি বিজিবির ৩৪ ব্যাটালিয়নের পালংখালী বিওপির নায়েব সুবেদার মো. শহিদুল ইসলাম বাদি হয়ে অস্ত্র আইনে মামলা করে উখিয়া থানার পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। পরের দিন ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে এদের আদালতে পাঠানো হয়।
গত ১২ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শ্রীজ্ঞান তঞ্চঙ্গ্যা শুনানি শেষে ২২ জনের ৩ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। গ্রেফতারের পর কারাগারে থাকা মো. সাদেক নামের এক রোহিঙ্গা অসুস্থ হওয়ায় তার রিমান্ডের অনুমতি দেননি বিচারক।

অনুপ্রবেশকারী ১১ রোহিঙ্গাকে রিমান্ড শেষে আদালতে প্রেরণ

আপডেট সময় : ০৯:২৪:০৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

মোহাম্মদ হাসান, কক্সবাজার প্রতিনিধি :

অস্ত্রসহ মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী ২৩ রোহিঙ্গার মধ্যে ১১ জনকে ৩ দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে অপর ১১ জনকে ৩ দিনের রিমান্ডের জন্য পুলিশ হেফাজতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ৩ দিনের রিমান্ড শেষ হওয়া ১১ রোহিঙ্গাকে কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শ্রীজ্ঞান তঞ্চঙ্গ্যার আদালতে উপস্থাপন করা হলে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন৷

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উখিয়ার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নাছির উদ্দিন মজুমদার।
তিনি বলেন, প্রথম দফায় নিয়ে যাওয়া ১১ রোহিঙ্গা ৩ দিনের রিমান্ডে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। এদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় অপর ১১ রোহিঙ্গাকে সোমবার দুপুরে কারাগার থেকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এদের ৩ দিনের রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। একইসঙ্গে প্রথম দফায় ১১ জনের দেয়া তথ্যের সাথে যাচাই-বাছাই করা হবে।
প্রথম দফায় ১৬ ফেব্রুয়ারি দুপুরে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে এই ১১ জনকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। আদালত ২৩ রোহিঙ্গার মধ্যে অসুস্থ একজন ছাড়া অপর ২২ জনের ৩ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছিল।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের সংঘাতের মধ্যে পালিয়ে আসা বিজিপি সদস্যের পাশাপাশি অস্ত্রধারী ২৩ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করেছিল। এদের ৯ ফেব্রুয়ারি বিজিবির ৩৪ ব্যাটালিয়নের পালংখালী বিওপির নায়েব সুবেদার মো. শহিদুল ইসলাম বাদি হয়ে অস্ত্র আইনে মামলা করে উখিয়া থানার পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। পরের দিন ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে এদের আদালতে পাঠানো হয়।
গত ১২ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শ্রীজ্ঞান তঞ্চঙ্গ্যা শুনানি শেষে ২২ জনের ৩ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। গ্রেফতারের পর কারাগারে থাকা মো. সাদেক নামের এক রোহিঙ্গা অসুস্থ হওয়ায় তার রিমান্ডের অনুমতি দেননি বিচারক।