ঢাকা ০৫:২৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসায়ী সেলিম প্রধানকে ৮ বছরের কারাদণ্ড

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০৪:১১:২০ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২৩ ৮ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি:
অবৈধ সম্পদ অর্জন ও অর্থ পাচারের মামলায় অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসায়ী সেলিম প্রধানকে পৃথক দুটি ধারায় ৮ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া তাকে ১১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। রোববার (৩০ এপ্রিল) দুপুরে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৮ এর বিচারক মো. বদরুল আলম ভূঁইয়ার আদালত এ রায় ঘোষণা করেন।

এ ছাড়া সেলিম প্রধানকে অবৈধ সম্পদ অর্জনের দায়ে ৪ বছরের কারাদণ্ড, এক লাখ টাকা জরিমানা এবং অর্থ পরিশোধ না করলে আরও এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া মানি লন্ডারিংয়ের দায়ে তাকে ৪ বছরের কারাদণ্ড, ১০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আদালত রাষ্ট্রের অনুকূলে অবৈধভাবে অর্জিত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন। এদিকে পৃথক দুই ধারার সাজা একত্রে চলবে। সেক্ষেত্রে তাকে চার বছরের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে।

রায়ের পর্যবেক্ষণে বিচারক বলেন, রায় দিয়ে সমাজ থেকে দুর্নীতি দূর করা সম্ভব নয়। তাই দুর্নীতিবাজদের সঙ্গে সন্তানদের বিয়ে দেবেন না। দাওয়াত দিলে যাবেন না। জেনেশুনে কারো দাওয়াতে যাওয়া মানে রাষ্ট্রবিরোধী অবস্থান নেওয়া। দুর্নীতিবাজদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে।

রায় ঘোষণার সময় সেলিম প্রধানকে কারাগার থেকে আদালতে আনা হয়। এ সময় তার স্ত্রীও আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায়ের পর পরোয়ানাসহ তাকে আবার কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসায়ী সেলিম প্রধানকে ৮ বছরের কারাদণ্ড

আপডেট সময় : ০৪:১১:২০ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২৩

নিজস্ব প্রতিনিধি:
অবৈধ সম্পদ অর্জন ও অর্থ পাচারের মামলায় অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসায়ী সেলিম প্রধানকে পৃথক দুটি ধারায় ৮ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া তাকে ১১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। রোববার (৩০ এপ্রিল) দুপুরে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৮ এর বিচারক মো. বদরুল আলম ভূঁইয়ার আদালত এ রায় ঘোষণা করেন।

এ ছাড়া সেলিম প্রধানকে অবৈধ সম্পদ অর্জনের দায়ে ৪ বছরের কারাদণ্ড, এক লাখ টাকা জরিমানা এবং অর্থ পরিশোধ না করলে আরও এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া মানি লন্ডারিংয়ের দায়ে তাকে ৪ বছরের কারাদণ্ড, ১০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আদালত রাষ্ট্রের অনুকূলে অবৈধভাবে অর্জিত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন। এদিকে পৃথক দুই ধারার সাজা একত্রে চলবে। সেক্ষেত্রে তাকে চার বছরের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে।

রায়ের পর্যবেক্ষণে বিচারক বলেন, রায় দিয়ে সমাজ থেকে দুর্নীতি দূর করা সম্ভব নয়। তাই দুর্নীতিবাজদের সঙ্গে সন্তানদের বিয়ে দেবেন না। দাওয়াত দিলে যাবেন না। জেনেশুনে কারো দাওয়াতে যাওয়া মানে রাষ্ট্রবিরোধী অবস্থান নেওয়া। দুর্নীতিবাজদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে।

রায় ঘোষণার সময় সেলিম প্রধানকে কারাগার থেকে আদালতে আনা হয়। এ সময় তার স্ত্রীও আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায়ের পর পরোয়ানাসহ তাকে আবার কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।