ঢাকা ০১:৫৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অগ্রণী ব্যাংকের কিছু তথ্য ফাঁসের অভিযোগ

বাংলাদেশ কণ্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০২:০৩:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ জুন ২০২৪ ২৫ বার পঠিত

রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের কিছু তথ্য ফাঁসের অভিযোগ উঠেছে। ‘কিল সিকিউরিটি’ নামে একটি হ্যাকার গ্রুপ ১২,০০০ টিরও বেশি তথ্য চুরি করেছে বলে দাবি করেছে। এ ব্যাপারে হ্যাকাররা টাকাও দাবি করেছিল বলে জানা গেছে। তবে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বলছে, পুরো সার্ভার হ্যাকারদের কবলে পড়েনি। কিছু কর্মচারীর ই-মেইল আইডি উদ্ধার করেছে হ্যাকাররা।

জানা গেছে, ‘কিল সিকিউরিটি’ নামের হ্যাকার গ্রুপটি অগ্রণী ব্যাংকের ১২ হাজারের বেশি তথ্য হ্যাক করে। টেলিগ্রাম মাধ্যমে গত ১৭ মে হ্যাকাররা বার্তা দিয়ে জানায়, ৫ হাজার ইউরো তাদের না দিলে এসব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ফাঁস করে দেবে। তবে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে টাকা না পেয়ে হ্যাকার গ্রুপ ডার্ক ওয়েবে গত ৬ জুন তথ্যগুলো ফাঁস করে দেয়।

তবে ব্যাংকটির একটি সূত্র জানায়, অগ্রণী ব্যাংকের কিছু তথ্য ফাঁসের দাবি করে একটি হ্যাকার গ্রুপ অর্থ দাবি করেছিল। বড় ধরনের হ্যাকের কোনো ঘটনা ঘটেনি, কয়েকজন কর্মীর ই-মেইল আইডি হ্যাকড হয়েছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যাংকটির ঊর্ধ্বতন দুই কর্মকর্তা বলেন, বেশ কিছু দিন ধরেই সার্ভার স্লো কাজ করছে। সার্কুলারগুলো ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছিল না। আমরা ভেবেছি হয়তো আইটি ভেন্ডার কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি নিয়ে আলাপ চলছে। এখন ভেতরে ভেতরে হ্যাকার আক্রমণের কথা শুনছি। তবে এখন কাজ করছে, সার্ভার স্লো আর নেই।

আইটি বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, অগ্রণী ব্যাংকের আইটি শক্তিশালীই ছিল। তবে আইটিপ্রধান শাহিনুর ইসলামের বিরুদ্ধে সফটওয়্যার কেনাকাটায় অনিয়ম পাওয়ার পর ক্রয় কমিটির ক্ষমতা তার কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া হয়। এরপর থেকেই তিনি আরও উদাসীন হয়ে পড়েন। সার্ভার হ্যাকের সঙ্গে তার (আইটিপ্রধান) উদাসীনতাকে দায়ী করেন অন্য কর্মকর্তারা।

অগ্রণী ব্যাংকের কিছু তথ্য ফাঁসের অভিযোগ

আপডেট সময় : ০২:০৩:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ জুন ২০২৪

রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের কিছু তথ্য ফাঁসের অভিযোগ উঠেছে। ‘কিল সিকিউরিটি’ নামে একটি হ্যাকার গ্রুপ ১২,০০০ টিরও বেশি তথ্য চুরি করেছে বলে দাবি করেছে। এ ব্যাপারে হ্যাকাররা টাকাও দাবি করেছিল বলে জানা গেছে। তবে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বলছে, পুরো সার্ভার হ্যাকারদের কবলে পড়েনি। কিছু কর্মচারীর ই-মেইল আইডি উদ্ধার করেছে হ্যাকাররা।

জানা গেছে, ‘কিল সিকিউরিটি’ নামের হ্যাকার গ্রুপটি অগ্রণী ব্যাংকের ১২ হাজারের বেশি তথ্য হ্যাক করে। টেলিগ্রাম মাধ্যমে গত ১৭ মে হ্যাকাররা বার্তা দিয়ে জানায়, ৫ হাজার ইউরো তাদের না দিলে এসব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ফাঁস করে দেবে। তবে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে টাকা না পেয়ে হ্যাকার গ্রুপ ডার্ক ওয়েবে গত ৬ জুন তথ্যগুলো ফাঁস করে দেয়।

তবে ব্যাংকটির একটি সূত্র জানায়, অগ্রণী ব্যাংকের কিছু তথ্য ফাঁসের দাবি করে একটি হ্যাকার গ্রুপ অর্থ দাবি করেছিল। বড় ধরনের হ্যাকের কোনো ঘটনা ঘটেনি, কয়েকজন কর্মীর ই-মেইল আইডি হ্যাকড হয়েছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যাংকটির ঊর্ধ্বতন দুই কর্মকর্তা বলেন, বেশ কিছু দিন ধরেই সার্ভার স্লো কাজ করছে। সার্কুলারগুলো ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছিল না। আমরা ভেবেছি হয়তো আইটি ভেন্ডার কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি নিয়ে আলাপ চলছে। এখন ভেতরে ভেতরে হ্যাকার আক্রমণের কথা শুনছি। তবে এখন কাজ করছে, সার্ভার স্লো আর নেই।

আইটি বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, অগ্রণী ব্যাংকের আইটি শক্তিশালীই ছিল। তবে আইটিপ্রধান শাহিনুর ইসলামের বিরুদ্ধে সফটওয়্যার কেনাকাটায় অনিয়ম পাওয়ার পর ক্রয় কমিটির ক্ষমতা তার কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া হয়। এরপর থেকেই তিনি আরও উদাসীন হয়ে পড়েন। সার্ভার হ্যাকের সঙ্গে তার (আইটিপ্রধান) উদাসীনতাকে দায়ী করেন অন্য কর্মকর্তারা।